default-image

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় এবার মাদ্রাসাছাত্রসহ দুই ছেলেশিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় গতকাল রোববার রাতে ওই দুই শিশুর অভিভাবকেরা বাদী হয়ে বেগমগঞ্জ থানায় পৃথক মামলা করেছেন। মামলার পর অভিযুক্ত দুই কিশোরসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পুলিশের ভাষ্য, মামলার পর অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে দুই কিশোরসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে এক মামলায় গ্রেপ্তার দুই কিশোরের একজনের বয়স ১৫ ও অপরজনের ১২। অপর মামলায় গ্রেপ্তার ব্যক্তির নাম কফিল উদ্দিন (৩৫)।

এক মামলার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, গতকাল বেলা দুইটার দিকে বাড়ি ফেরার পথে ছেলেটিকে (১১) কৌশলে নিজ দোকানে নিয়ে যান কফিল উদ্দিন। এরপর তিনি ছেলেটির মুখ চেপে ধরে ধর্ষণ করেন। পরে ছেলেটি কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি মা-বাবাকে জানায়। এ বিষয়ে রাতে দিকে শিশুটির মা বাদী হয়ে বেগমগঞ্জ থানায় মামলা করেন।

বিজ্ঞাপন

অপর মামলাটি করেছেন ছেলের বাবা। ওই মামলার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, গত শুক্রবার ছেলের সঙ্গে দেখা করতে মাদ্রাসায় যান তিনি। এ সময় ছেলে তাঁকে বাড়ি নিয়ে যাওয়ার জন্য কান্নাকাটি করে। ছেলেকে বাড়িতে নিয়ে আসলে দুই কিশোর মিলে তাকে ধর্ষণের বিষয়টি জানায়। মাদ্রাসার বড় হুজুরকে এ বিষয়ে জানালেও তিনি কোনো ব্যবস্থা নেননি। উল্টো কাউকে না জানানোর জন্য ছেলেকে হুমকি দিয়েছেন। ছেলেটির বাবা অভিযোগ করেন, মাদ্রাসায় যৌন নির্যাতনে তাঁর ছেলে অসুস্থ হয়ে পড়লেও কর্তৃপক্ষ চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা করেনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বেগমগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন প্রথম আলোকে বলেন, দুটি পৃথক ঘটনায় প্রাথমিক অভিযোগ পাওয়ার পরই রোববার দিবাগত রাতে অভিযুক্ত তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য পড়ুন 0