বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্য, হামলাকারীরা বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারী। এর আগে ২০ মে একই ব্যক্তির অনুসারীরা জায়দল হকের দোকানে ঢুকে তাঁকে মারধর করেন।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভাগনে মাহবুবুর রশিদ অভিযোগ করেন, গতকাল বিকেলে উপজেলার চরহাজারী ইউনিয়নের আবু মাঝিরহাট বাজারের কাছে একটি কর্মসূচি পালন শেষে জায়দল ও আনোয়ার বসুরহাটে আসেন। এ সময় পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে তাঁদের ওপর হামলা চালায় কাদের মির্জার অনুসারীরা। আহত অবস্থায় জায়দল ও আনোয়ারকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাতে দুজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

default-image

অভিযোগের বিষয়ে জানার জন্য আবদুল কাদের মির্জার মুঠোফোনে ফোন দিলে তাঁর অনুসারী স্বপন মাহমুদ ফোন ধরেন। তিনি বলেন, কাদের মির্জা একটি বৈঠকে আছেন। হামলার বিষয়ে স্বপন বলেন, গতকাল সন্ধ্যা থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলের অনুসারীরা বাজারে মহড়া দেন। এ সময় তাঁরা কাদের মির্জার কয়েকজন অনুসারীকে মারধর করেছেন। একপর্যায়ে ছাত্রলীগের সাবেক ওই দুই নেতার ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক প্রথম আলোকে বলেন, কাদের মির্জার অনুসারী মো. রাজু নামের একজন গত মঙ্গলবার কারাগার থেকে জামিনে বের হন। গতকাল রাত সোয়া ১০টার দিকে রাজুর নেতৃত্বে ১৫ থেকে ২০ জনের একটি দল ছাত্রলীগের সাবেক নেতা জায়দল হক ও আনোয়ারের ওপর হামলা চালায়। তিনি আরও বলেন, কাদের মির্জার অনুসারীদের ওপর কোনো হামলার ঘটনা ঘটেনি; বরং কাদের মির্জার অনুসারীদের হামলায় প্রতিপক্ষের দুজনসহ তিনজন আহত হয়েছেন। এ হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা হয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন