default-image

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় দোকানের কর্মচারী এক শিশুকে (১২) ধর্ষণ ও ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মামলার পর তিন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন দোকানটির মালিকের ছেলে মো. রাব্বি (২০), তাঁর চাচাতো বোনের স্বামী দিদার হোসেন (২৮) ও স্থানীয় এক দোকান কর্মচারী মো. সুমন (১৯)। আজ শনিবার সকালে গ্রেপ্তারের পর তাঁদের দুপুরে নোয়াখালীর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হয়।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ওই শিশুটি স্থানীয় বাজারের একটি দোকানে কর্মচারী হিসেবে কাজ করত। কিছুদিন আগে তাকে ধর্ষণ করেন একই বাজারের দোকান-কর্মচারী সুমন। আর দোকানমালিকের ছেলে রাব্বি তাঁর নিকটাত্মীয় দিদারের সহায়তায় গতকাল শুক্রবার রাতে শিশুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। শিশুটি গতকাল রাতে ঘটনাটি তার অভিভাবকদের জানায়। এরপর আজ সকালে শিশুটির বাবা চাটখিল থানায় মামলা করেন। এতে সুমন, দিদার ও রাব্বির বিরুদ্ধে শিশুটিকে ধর্ষণ ও ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়।

চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, শিশুটির বাবার মামলা নেওয়ার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে। দুপুরে তাঁদের নোয়াখালীর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন