নোয়াখালীতে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৭৭ জনের করোনা শনাক্ত

বিজ্ঞাপন
default-image

নোয়াখালীতে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৭৭ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের তিন কর্মী ও বেগমগঞ্জের চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির পাঁচজন পুলিশ সদস্য রয়েছেন। এ নিয়ে সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের ৯ জন এবং চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির আটজন সদস্যের করোনা শনাক্ত হলো।

গতকাল শুক্রবার রাতে জেলার আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ ও নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনা পরীক্ষার ল্যাব থেকে জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয়কে ওই ফলাফল জানানো হয়। শনিবার সিভিল সার্জনের কার্যালয় এই তথ্য প্রকাশ করে। এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫২ জন। এর মধ্যে গত ছয় দিনেই শনাক্ত হয়েছে ২২৫ জন। সর্বোচ্চ আক্রান্ত বেগমগঞ্জ উপজেলায় ১৭৮ জন।

জানতে চাইলে সিভিল সার্জন মো. মোমিনুর রহমান শনিবার প্রথম আলোকে বলেন, নতুন আক্রান্তদের মধ্যে তাঁর কার্যালয়ের প্রধান সহকারীসহ তিন কর্মচারী রয়েছেন। এ ছাড়া আক্রান্তের তালিকায় আছেন চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির আরও পাঁচজন সদস্য।

বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা অসীম কুমার দাশ প্রথম আলোকে বলেন, নতুন ৭৭ জনের মধ্যে ৪২ জনই বেগমগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা। জেলার সর্বোচ্চ আক্রান্তও ওই উপজেলায়। সেখানকার চৌমুহনীকে ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে রেড জোন ঘোষণা করা হয়েছে। সেখানে লকডাউন কঠোর করা হয়েছে। ওষুধের দোকান ও জরুরি সার্ভিস ছাড়া সব দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৭৭ জনের মধ্যে বেগমগঞ্জ উপজেলায় ৪২ জন, সদরে চারজন, সুবর্ণচরে তিনজন, সোনাইমুড়ীতে তিনজন, চাটখিলে পাঁচজন, সেনবাগে চারজন ও কবিরহাট উপজেলায় ১৬ জন। বেগমগঞ্জের ৪২ জনের মধ্যে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া এক ব্যক্তির করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন