বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে একই অভিযোগ পেয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন। এর আগে শনিবার স্থানীয় সাংসদ আয়েন উদ্দিনকে নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোয় আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছিল।

আল-আমিন বিশ্বাস মৌগাছি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আর আবুল হোসেন সাবেক চেয়ারম্যান। সংবাদ সম্মেলনে আবুল হোসেন ১৯ নভেম্বর বেড়াবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত নৌকার প্রার্থীর নির্বাচনী সমাবেশের একটি ভিডিও ফুটেজ দেখান।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, আল-আমিন বিশ্বাস বলছেন, ‘বিএনপি ভোটে নাই। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে হবে। বিএনপির যেখানে অংশগ্রহণ নাই, সেখানে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কোনো দাম আছে? তাই আমি বিএনপির ভাইদের বলতে চাই, যদি নৌকায় ভোট দিতে কষ্ট হয়, মাঠে আসবেন না। আসার দরকার নাই। আওয়ামী লীগ সরকার জানে, এমপি আয়েন উদ্দিন জানে, ভোট কীভাবে করতে হয়।’

সংবাদ সম্মেলনে আবুল হোসেন বলেন, ভোট নিয়ে এ পর্যন্ত প্রশাসনের অবস্থান ভালোই। তবে নৌকার প্রার্থীর সমর্থকেরা তাঁর সমর্থকদের হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন। প্রচারণা চালাতে দেওয়া হচ্ছে না। সবশেষ রোববার তাঁর মেয়ে এবং পুত্রবধূ প্রচারণায় বের হলে তাঁদের বাড়ি ফিরতে বাধ্য করেছেন নৌকার প্রার্থী। আর ভোটারদের যেতে বারণ করার বিষয়ে তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। আবুল হোসেন সুষ্ঠু পরিবেশে ভোট গ্রহণের আহ্বান জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আল-আমিন বিশ্বাস প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি সেদিন পথসভায় অনেকক্ষণ বক্তব্য দিয়েছিলাম। আমি সেদিন নিজ দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বলেছিলাম, আপনারা আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে আওয়ামী লীগের পদ নিয়ে, কর্মী সেজে, উন্নয়নের পাশে থেকে, আওয়ামী লীগের সব সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আজকে নৌকায় ভোট করছেন না। নৌকাতে যদি ভোট না দেন, তাহলে কেন্দ্রে আসার দরকার নাই। কথাটা এভাবে বলেছি। নিজ দলের নেতা-কর্মীদের প্রতি আবেগে বলেছি। এই ভিডিও কেটেছেঁটে এটা এমন করা হয়েছে।’

মৌগাছি ইউপি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. রোকনুজ্জামান তালুকদার প্রথম আলোকে বলেন, ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে যেতে বারণ করার ভিডিও ফুটেজ তিনি দেখেছেন। তাই নৌকার প্রার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন। সোমবার সকালেই নৌকার প্রার্থী নোটিশের কপি নিয়ে গেছেন। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তাঁকে জবাব দিতে বলা হয়েছে। তাঁর লিখিত ব্যাখ্যা পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন