স্থানীয় লোকজন ও পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতিবেশী জুয়েল রানার স্ত্রী সোনালীর কাছ থেকে নিহত ইমাম হাসানের স্ত্রী মাজেদা একটি গরু বর্গা নেন। ওই গরু বিক্রির টাকা ভাগাভাগি নিয়ে গতকাল দুপুরে সোনালীর সঙ্গে মাজেদার ঝগড়া ও হাতাহাতি হয়। এ বিষয়ে সোনালীর স্বামী জুয়েল রানা সন্ধ্যায় ইমাম হাসানের কাছে জানতে চান। এ নিয়ে দুজনের কথা-কাটাকাটি হয়, একপর্যায়ে তাঁদের মধ্যে উত্তেজনা চরমে ওঠে। তখন জুয়েল রানা সড়কি এনে ইমাম হাসানের গলায় একটি কোপ দেন। এতে ঘটনাস্থলে তাঁর মৃত্যু হয়।

নড়াইল সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাহমুদুর রহমান আজ মঙ্গলবার সকালে প্রথম আলোকে বলেন, এর আগেও একটি বিষয় নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে দ্বন্দ্ব হয়েছিল। ওই দ্বন্দ্ব এবং গরু বিক্রির টাকা ভাগাভাগি নিয়ে ইমাম হাসানকে কুপিয়ে হত্যা করেন জুয়েল। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সোনালীকে থানা হেফাজতে আনা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন