বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আদালত–সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১৫ সালের ৮ সেপ্টেম্বর নড়াইল জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল লস্করপুর গ্রামের শহিদুল ইসলামের বাড়িতে মাদক কেনাবেচার খবরে পেয়ে অভিযান চালায়। অভিযানে শহিদুলের স্ত্রী রিক্তা পারভীনকে আটক করা হয়। পরে তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বাড়ির রান্নাঘরের মেঝেতে পুঁতে রাখা একটির মাটির কলসি থেকে ৬৪ বোতল ফেনসিডিল ও ৩০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়। এ সময় পুলিশ শহিদুল, সুরভী ও বাশার শেখকে আটক করে।

এ ঘটনায় ডিবি কর্মকর্তা এসআই নুরুস সালাম বাদী হয়ে ওই দিন রাতে চারজনের নামে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে সদর থানায় মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করেন ডিবির এসআই রেজাউল করিম। তদন্ত শেষে তিনি আসামিদের সবার নামে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। আদালত বিচারকার্যে ১৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে ওই রায় দেন।

নড়াইল আদালতের পুলিশ পরিদর্শক অজিৎ কুমার মিত্র বলেন, সাজা পাওয়া রিক্তা পারভীনসহ অন্য তিনজনকেও কারাগারে পাঠানো হয়েছে। খালাস পাওয়া তিনজন আদালতের আইনি প্রক্রিয়া শেষে ছাড়া পাবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন