বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ডিসেম্বরের শুরুতে মাসব্যাপী এই আয়োজন করেছে বোধন। শুক্রবার তৃতীয় পর্বের অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী কণ্ঠযোদ্ধা জয়ন্তী লালা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিস আলী।

এ সময় জয়ন্তী লালা বলেন, ‘আমি স্বাধীন বাংলা বেতারের কণ্ঠযোদ্ধা ছিলাম। শুধু স্বাধীন বাংলা বেতারে নয়, মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে গিয়ে গান করে তাঁদের উদ্বুদ্ধ করেছি। অনুপ্রাণিত করেছি। তাঁদের সঙ্গে স্লোগান দিয়েছি। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু। স্বাধীনতায় এভাবে অবদান রাখতে পেরেছি, এই আমার অহংকারের জায়গা।’

অপর্ণচরণ উচ্চবিদ্যালয় থেকে ট্রাকযোগে বোধনের শিল্পীরা যান কালুরঘাট স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সামনে। সেখানে ভ্রাম্যমাণ মঞ্চে কথামালা, গান ও কবিতা আবৃত্তি করা হয়। আয়োজনে সংগীত পরিবেশন করে অদিতি সংগীত নিকেতন।

আবৃত্তি পরিবেশন করে বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের চট্টগ্রাম অঞ্চলের সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ রুদ্র। এ ছাড়া বোধনের সহসভাপতি সুবর্ণা চৌধুরী, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য সঞ্জয় পাল, ইসমাইল সোহেল, বিপ্লব শীলসহ অনেকে আবৃত্তি পরিবেশন করেন।

কালুরঘাটের পর দিনব্যাপী এই আয়োজন হয় পটিয়া, আনোয়ারা, চন্দনাইশ উপজেলার পথে পথে। সন্ধ্যায় ছয় দফা আন্দোলনের ঘোষণাস্থল লালদীঘি মাঠের সামনে তৃতীয় পর্বের অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন