বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত ফেব্রুয়ারিতে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহফুজ চৌধুরী তাঁর স্ত্রী কামরুন্নাহারকে রুকিন্দীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন। কামরুন্নাহার তখন জয়পুরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিতে সহকারী ক্যাশিয়ার পদে চাকরি করতেন। মনোনয়ন পাওয়ার পর চাকরি থেকে ইস্তফা দিয়েছেন।

মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে কামরুন্নাহার বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নৌকা প্রতীক দিয়েছেন। জয়পুরহাট-২ আসনের সাংসদ, হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ ভাইয়ের সহযোগিতায় রুকিন্দীপুর ইউনিয়নের মানুষের উন্নয়ন করতে চাই।’

এ ইউনিয়নে মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান আহসান কবিরও। পদে না থাকা কামরুন্নাহারের মনোনয়ন পাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কী কারণে তিনি মনোনয়ন পেলেন, তা বুঝতে পারছেন না।

আহসান কবিরের সমর্থক ও উপজেলা মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক আছিয়া খানম বলেন, কামরুন্নাহার শিমুল দলীয় কোনো পদে ছিলেন না। আবার রাজনীতিতেও সক্রিয় নন। দলীয় প্রার্থীর বড় পরিচয় তিনি আওয়ামী লীগ নেতার স্ত্রী। এমন ঘটনার কারণে তিনি নিজেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করবেন বলে জানান।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, রুকিন্দীপুর ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন পাওয়া কামরুন্নাহারের স্বামী গোলাম মাহফুজ চৌধুরীও একসময় রুকিন্দীপুর ইউপির চেয়ারম্যান ছিলেন। পরে তিনি আক্কেলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক হন। মেয়াদের শেষ মুহূর্তে চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। পরে ভোটাধিকার স্থানান্তর করে ২০১৫ সালে পৌর নির্বাচনে তিনি আক্কেলপুর পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হন। ২০১৬ সালে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আহসান কবির রুকিন্দীপুর ইউপির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এরপর হঠাৎই গোলাম মাহফুজ-আহসান কবিরের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়, যা সংঘাতেও রূপ নেয়। দুই পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনাও ঘটে। ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে স্থানীয় সাংসদ আবু সাঈদ আল মাহমুদের উদ্যোগে তাঁরা দুজন একে অপরকে মিষ্টি মুখ করিয়ে সেই বিরোধের ইতি টানেন। তবে সম্প্রতি তাঁদের আবারও বিরোধ তৈরি হয়েছে। একে অপরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পাল্টাপাল্টি বক্তব্যও দিয়েছেন তাঁরা।

দ্বিতীয় ধাপে ১১ নভেম্বর জেলার আক্কেলপুর উপজেলার পাঁচটি ও ক্ষেতলাল উপজেলার দুটি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গত বৃহস্পতিবার গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ড ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথ সভায় দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হয়।

ক্ষেতলালের একটি ইউনিয়নে নৌকার মাঝি বদল হয়েছে। উপজেলার আলমপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ারুজ্জামান তালুকদার দলীয় মনোনয়ন পাননি। ওই ইউনিয়নে রাজিবুল ইসলামকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন