বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত বছর থেকে পাইনপাড়ার চরটি পদ্মার ভাঙনের কবলে পড়েছে। দুই বছরে অন্তত ২৫০টি পরিবার গৃহহীন হয়েছে। এখন ৫২ নম্বর পাইনপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মফিজুল উলুম নূরানী মাদ্রাসার ভবন ভাঙনের কবলে পড়েছে।

পাইনপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, ‘গত ৫০ বছরে বিদ্যালয়টি পাঁচ দফা ভাঙনের কবলে পড়েছে। প্রতিবারই বিদ্যালয় সরিয়ে নিতে হয়েছে। আমরা এখন আতঙ্কে আছি, বিদ্যালয় মাঠের বেশ কিছু জায়গা পদ্মায় বিলীন হয়েছে। এখন বিদ্যালয়টি ভাঙনের কবলে পড়লে বিপাকে পড়ব। কারণ, জমির দাম বাড়ায় কেউ এখন আর বিদ্যালয়ের জন্য জমি দান করতে চান না।’

পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী ইমন খলিফা ও শাহ আলম মাদবর বলে, নদীটি ৩০০-৪০০ মিটার দূরে ছিল। এক বছর ধরে ভাঙন অব্যাহত থাকায় নদী বিদ্যালয়ের মাঠের কাছে চলে এসেছে।

শরীয়তপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করেছি। শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সব সময় ভাঙনের আতঙ্কে থাকে। ভিডিও কলের মাধ্যমে বিষয়টি আমি আমাদের ডিজিকে গত সপ্তাহে দেখিয়েছি। তিনি বিদ্যালয় রক্ষার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।’

জাজিরর ইউএনও আশ্রাফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, ‘পাউবোকে জরুরি ভিত্তিতে নদীভাঙন বন্ধে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন