বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় মৎস্যজীবীরা জানান, প্রতিদিনের মতো আজ সকালে পদ্মা নদীতে জাল নিয়ে মাছ ধরতে বের হন জেলে বলাই হালদার। দুপুরের দিকে জাল তুলতেই ঝাঁকুনিতে বুঝতে পারেন বড় কোনো মাছ আটকা পড়েছে। জাল গুটিয়ে নৌকায় তুলতেই দেখেন বড় একটি বোয়াল মাছ। ইংরেজি নতুন বছরের প্রথম দিন পদ্মা নদীতে বড় বোয়াল মাছ পেয়ে জেলে বলাই হালদার বেজায় খুশি হন। তাৎক্ষণিকভাবে মাছটি বিক্রির জন্য তিনি গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটে নিয়ে আসেন। এ সময় দৌলতদিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাট এলাকার মৎস্য ব্যবসায়ী মো. শাহজাহান শেখ মাছটি কিনে নেন।

উন্মুক্ত নিলামে ২৭ হাজার টাকায় মাছটি কিনে পরে ১ হাজার ৮৫০ টাকা কেজি দরে মোট ২৭ হাজার ৭৫০ টাকায় বিক্রি করেন শাহজাহান শেখ।

দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকার শাকিল-সোহান মৎস্য আড়তের স্বত্বাধিকারী মো. শাহজাহান শেখ বলেন, জেলে বলাই হালদার মাছটি পাওয়ার পর মুঠোফোনে তাঁকে বিষয়টি জানান। পরে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের উপস্থিতিতে উন্মুক্ত নিলামে মাছটির দাম হাঁকা হয়। এ সময় সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে তিনি ১ হাজার ৮০০ টাকা কেজি দরে মোট ২৭ হাজার টাকায় মাছটি কিনে নেন।

শাহজাহান শেখ আরও জানান, মাছটি দুপুরের দিকে কেনার পর তিনি আড়তে এনে রাখেন। এ সময় ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকার পরিচিত বড় বড় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে থাকেন। পরে মানিকগঞ্জের এক বড় ব্যবসায়ীর কাছে বিকেলে ১ হাজার ৮৫০ টাকা কেজি দরে মোট ২৭ হাজার ৭৫০ টাকায় বোয়াল মাছটি বিক্রি করেন। মাছটি মোটরসাইকেলে ওই ব্যবসায়ীর কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা রেজাউল শরীফ বলেন, বর্তমানে পদ্মা নদীতে খুব বেশি একটা বড় মাছ ধরা পড়ছে না। কয়েক দিন আগেও মাঝেমধ্যে পাঙাশ, রুই, কাতলা, বোয়াল জাতীয় মাছ ধরা পড়ত। ভবিষ্যতে এভাবেই দেশীয় বড় প্রজাতির মাছ আরও ধরা পড়বে বলে তিনি আশাবাদ প্রকাশ করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন