পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে দক্ষিণের জেলা ঝালকাঠির চারটি উপজেলায় এখন সাজ সাজ রব। ব্যানার-ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে চারপাশ। সর্বত্র উৎসবের আমেজ। পৌর শহরের প্রবেশদ্বার ঢাপোর এলাকায় ঝলমলে বাতি এবং রঙিন পতাকা দিয়ে সুসজ্জিত করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী অঙ্গসংগঠনের নেতারা বলছেন, দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের খবর সর্বস্তরে জানান দিতে এমন আয়োজন।

সদরের তারুলী এলাকার মজিবর রহমান কেওড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ওয়ার্ড পর্যায়ের একজন কর্মী। তিনি পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী দিনে যোগ দিতে দলের নেতা–কর্মীদের সঙ্গে লঞ্চে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু দেখতে যাব বলে দুই দিন ধরে আনন্দে ঘুম বন্ধ হওয়ার উপক্রম। কারণ, প্রধানমন্ত্রী আমাদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করেছেন। সেই স্বপ্নের বাস্তব রূপ দেখতেই সেখানে যাব।’

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খান সাইফুল্লাহ বলেন, আজ রাত ৮টায় ঝালকাঠি লঞ্চ টার্মিনাল থেকে মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ী ঘাটের উদ্দেশ্যে সুন্দরবন-১২ নামের একটি লঞ্চ ছেড়ে যাবে। ঘাট ছাড়ার পরে লঞ্চটি নলছিটি উপজেলায় ভিড়বে সেখানকার যাত্রী নেওয়ার জন্য। এর আগে দুপুরে কাঁঠালিয়া উপজেলা লঞ্চঘাট থেকে ছেড়ে রাজাপুর উপজেলার বাদুরতলা লঞ্চঘাটে ভিড়বে ফারহান-৭ নামের আরও একটি লঞ্চ। সেখান থেকে যাত্রী নিয়ে রাতে ঝালকাঠি হয়ে একসঙ্গে পদ্মা সেতুর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। সবার জন্য বিনা মূল্যে যাতায়াত এবং খাবারের ব্যবস্থা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে কাল শনিবার সন্ধ্যায় শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে জেলা প্রশাসন। স্টেডিয়ামে বড় পর্দায় দেখানো হবে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি। সেখানে পদ্মা সেতুর আদলে একটি কাঠের সেতু প্রদর্শনীর জন্য নির্মাণ করা হয়েছে। এ উপলক্ষে সব প্রস্তুতি শেষ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন