বৃহস্পতিবার বিকেলে জাজিরা প্রান্তের নাওডোবায় গিয়ে দেখা যায়, শ্রমিকেরা সাজসজ্জার বিভিন্ন কাঠামো বানাচ্ছেন। এর মধ্যে ডিজিটাল প্রিন্টের ছবি লাগাচ্ছেন। আবার সেগুলো বিভিন্ন স্থানে স্থাপন করছেন। সংযোগ সড়কের পাশের গাছসংলগ্ন আগাছা ও ঘাস পরিষ্কার করছেন শ্রমিকেরা। সড়কে পড়ে থাকা আবর্জনা পরিষ্কার করছেন তাঁরা। কাঁঠালবাড়িতে জনসভা স্থলে মঞ্চ নির্মাণ শেষ করা হয়েছে। এখন চলছে মঞ্চের সামনে অতিথিদের বসার আসনবিন্যাসের কাজ। মঞ্চের আশপাশে সাজানো হচ্ছে। এসব কাজ তদারক করছেন নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা।

সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, বুধবার মূল সেতুর কাজের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়েছে। এখন পদ্মা সেতু চালুর জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত হয়েছে। বুধবার বিকেলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) সেতুটি প্রকল্প কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দিয়েছে। জাজিরা প্রান্তে টোল প্লাজার পাশে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ম্যুরাল নির্মাণ করা হয়েছে। আরও নির্মাণ করা হয়েছে ইলিশের ভাস্কর্য ও ফোয়ারা।

বিকেলে প্রস্তুতিমূলক কাজ ঘুরে দেখেন শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের প্রাণের পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হচ্ছে। প্রাণপ্রিয় নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বরণ করার জন্য প্রস্তুত। পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে দক্ষিণের মানুষ উচ্ছ্বসিত। ২৫ তারিখে লাখো জনতা প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় উপস্থিত হয়ে পদ্মা সেতু ঘিরে যেসব ষড়যন্ত্র হয়েছিল, তার সমুচিত জবাব দেবে।’

পদ্মা সেতু প্রকল্পের (সেতু বিভাগের) সহকারী প্রকৌশলী পার্থ সারথী বিশ্বাস প্রথম আলোকে বলেন, জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজার সামনে প্রধানমন্ত্রী যেখানে বিভিন্ন স্থাপনা উদ্বোধন করবেন, তা প্রস্তুত হয়েছে। সে স্থানে এখন চলছে সাজসজ্জার কাজ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন