শরীয়তপুর সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, পদ্মা সেতুর নাওডোবা প্রান্ত থেকে শরীয়তপুর জেলা শহর পর্যন্ত সংযোগ সড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নেয় সরকার। ২০২০ সালের মার্চে ২৭ কিলোমিটার সড়কের জন্য ১ হাজার ৬৮২ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়। নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল চলতি বছরের ৩০ জুন।

শরীয়তপুর সওজ ও জেলা প্রশাসন চার লেন সড়ক নির্মাণের জন্য ১০৫ হেক্টর জমি অধিগ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু করে। জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখা ২২টি এলএ কেসের মাধ্যমে জমি অধিগ্রহণ কার্যক্রম করছে। জেলা প্রশাসন থেকে ইতিমধ্যে নাওডোবা আন্ডারপাস থেকে বিকেনগড় পর্যন্ত চার কিলোমিটার এলাকার জমি সওজকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সওজ ওই অংশে সড়ক নির্মাণের কোনো কাজ শুরু করেনি। তারা জেলা শহরের ফায়ার সার্ভিস স্টেশন থেকে জাজিরা টিঅ্যান্ডটি মোড় পর্যন্ত সাড়ে ১৩ কিলোমিটার অংশের কার্যাদেশ দিয়েছে।

সওজ সূত্রে জানা গেছে, গত ৪ জুন ফায়ার সার্ভিস স্টেশন–প্রেমতলা পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার সড়কের কাজ শুরু করেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। চার লেনের জমি অধিগ্রহণ করা হলেও এখন সড়ক নির্মাণ করা হবে দুই লেনের।

শরীয়তপুর জেলা সদরের বাসিন্দা সাইফুর রহমান বলেন, দুই বছর সময় পেয়েও সড়ক বিভাগ সড়ক নির্মাণের কোনো পর্যায়ে পৌঁছাতে না পারা চরম উদাসীনতা। পদ্মা সেতু চালু হয়েছে, কিন্তু সংযোগ সড়ক না থাকায় জেলার বাসিন্দারা পুরোপুরি সুফল পাচ্ছেন না।

শরীয়তপুর সওজের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী শফিকুর রহমান বলেন, সড়কটি নির্মাণ করতে জমি প্রয়োজন। আর সেই জমি অধিগ্রহণে দেরি হচ্ছে। সাড়ে ১৩ কিলোমিটার অংশের কাজ সম্প্রতি শুরু হয়েছে। বাকি সাড়ে ১৩ কিলোমিটার অংশের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন