default-image

গাড়ির চাকার সঙ্গে জীবিকা থেমে যাওয়া বগুড়ার সেই পরিবহনশ্রমিক আমিনুর ইসলামের পাশে দাঁড়ালেন এসআর গ্রুপের চেয়ারম্যান ও বগুড়া-৬ আসনের সাংসদ গোলাম মো. সিরাজ। শনিবার বগুড়া শহরের ঠনঠনিয়া নতুনপাড়ার বাড়িতে গিয়ে সাংসদের পক্ষ থেকে আগামী রোজার ঈদ পর্যন্ত সংসার চালানোর জন্য নগদ টাকা ছাড়াও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য, ইফতারসামগ্রীসহ প্রায় ১০ হাজার টাকার খাদ্যসামগ্রী আমিনুরের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

সাংসদ গোলাম মো. সিরাজের পক্ষ থেকে তাঁর ব্যক্তিগত সহকারী আবদুল আজিজ এবং সাইদুল ইসলাম এসব সহায়তা তুলে দেন আমিনুরের হাতে। এ সময় বগুড়া পৌরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এনামুল হকও সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
নিত্যপণ্যের মধ্যে আছে ৪০ কেজি চাল, ১৫ কেজি আলু, ৮ কেজি মসুর ডাল, ৫ লিটার সয়াবিন তেল, ৪ কেজি চিনি, ৫ কেজি পেঁয়াজ, ২ কেজি লবণ, ২ কেজি খেজুর এবং আদা-রসুনসহ আনুষঙ্গিক আরও জিনিসপত্র। এ ছাড়া পবিত্র রমজান মাসে ইফতারসামগ্রী ও মাছ-মাংস কেনার জন্য ৩ হাজার টাকা দেওয়া হয়।

আমিনুর পেশায় পরিবহনশ্রমিক। তিনি বগুড়া-নগরবাড়ী রুটে চলাচলকারী শাকিল এন্টারপ্রাইজ বাসের চালক। প্রতিদিন বাস চালিয়ে মজুরি পাওয়া ৫০০ টাকা রোজগারে সংসার চলত তাঁর। জীবনের তিন দশক কেটে গেছে গাড়িতেই।

বিজ্ঞাপন

করোনা বেড়ে যাওয়া সংক্রমণ ঠেকাতে গত সোমবার থেকে মহাসড়কে বাস চলাচল বন্ধ। গাড়ির চাকার সঙ্গে থেমে গেছে চালক আমিনুরের জীবিকাও। এখন সংসারে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে দিন কাটছে তাঁর প্রচণ্ড অর্থকষ্টে। এই সময়ে আমিনুরের জীবিকার কষ্ট নিয়ে গত শুক্রবার প্রথম আলোর বাণিজ্য পাতায় ও প্রথম আলোর অনলাইনে ‘গাড়ির সঙ্গে থেমে গেছে আমিনুরের জীবিকার চাকা’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়। প্রতিবেদনটি ছাপা হওয়ার পর আমিনুরের পাশে দাঁড়ান সাংসদ গোলাম মো. সিরাজ ছাড়াও ঢাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন নারী। ওই নারী আমিনুরকে নগদ সহায়তার কথা জানিয়েছেন।

সাংসদ গোলাম মো. সিরাজ বলেন, মহাসড়কে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় আমিনুরের জীবিকা থেমে যাওয়া এবং আর্থিক কষ্ট নিয়ে শুক্রবার প্রথম আলোতে গাড়ির সঙ্গে থেমে গেছে আমিনুরের জীবিকার চাকা শিরোনামে প্রতিবেদনটি নজরে এলে অসহায় ওই শ্রমজীবী পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য নগদ অর্থসহ সব মিলিয়ে প্রায় ১০ হাজার টাকার সহায়তা তাঁর বাড়িতে পৌঁছে দিই। আরও দীর্ঘমেয়াদি লকডাউন আসছে। এ সময় নির্বাচনী এলাকায় দরিদ্র শ্রমজীবী ও অসহায় মানুষকেও সহায়তা প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন