বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
হিসাব খুব সহজ। করোনায় মৃত্যুর হার কম দেখানোর জন্য হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের করোনা পরীক্ষা করানো হচ্ছে না।
হাফিজুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক, নাগরিক আন্দোলন মঞ্চ, সাতক্ষীরা

এ নিয়ে চলতি মাসের ১৭ দিনে উপসর্গে মৃত্যু হয়েছে ১০৮ জনের। জেলায় এ পর্যন্ত করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৪৫৮ জন। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার সংখ্যা ৮০।

সিভিল সার্জনের দপ্তর সূত্র জানায়, জুন মাসে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনার উপসর্গ নিয়ে ১২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। সেখানে জুলাই মাসের ১৭ দিনে উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে ১০৮ জনের। জুন মাসে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৮ জনের মৃত্যু হয়। সেখানে ১৭ দিনে করোনাভাইরাস সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের।

কলারোয়া মুরারিকাটি এলাকার হাসান হোসেন ও কালীগঞ্জের মৌমলা গ্রামের মনিরুল ইসলাম জানান, শ্বাসকষ্টসহ নানা উপসর্গ নিয়ে তাঁরা দুজন তাঁদের বাবাকে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। বুকের সিটি স্ক্যান পরীক্ষা করে দেখা যায়, তাঁদের ফুসফুস আক্রান্ত। চিকিৎসকেরা বলেন, আর নমুনা নিয়ে করোনা পরীক্ষা করানোর দরকার নেই। তাঁরা করোনাভাইরাস আক্রান্ত।

সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান বলেন, হিসাব খুব সহজ। করোনায় মৃত্যুর হার কম দেখানোর জন্য কৌশল হিসেবে হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের করোনা পরীক্ষা করানো হচ্ছে না। বাড়ছে উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু। আর কমেছে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা।

জানতে চাইলে হাসপাতালে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ মানস মণ্ডল বলেন, অনেক সময় করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ আসে। কিন্তু দেখা যায়, রোগীর সব ধরনের উপসর্গ রয়েছে। বুকের সিটি স্ক্যান করার পর দেখা যায় ফুসফুসে আক্রান্ত। এ জন্য পরীক্ষার ওপর জোর না দিয়ে উপসর্গ থাকলে সিটি স্ক্যানের ওপর জোর দেওয়া হয়। ফুসফুস আক্রান্ত হলে করোনার চিকিৎসা দেওয়া হয়।

সিভিল সার্জন অফিসের চিকিৎসা কর্মকর্তা জয়ন্ত সরকার জানান, শুক্রবার রাত আটটা থেকে শনিবার রাত আটটা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ১৭৫ জনের নমুনা পরীক্ষা শেষে ৩৩ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের শতকরা হার ১৮ দশমিক ৮৬ শতাংশ। এ নিয়ে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৪ হাজার ৪২৫। করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৪৫৮ জন এবং করোনা সংক্রমণ হয়ে মারা গেছেন ৮০ জন। বর্তমানে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ২০৮ জন। তাঁদের মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ৩৪ জন করোনা পজিটিভ রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন