default-image

বাড়ির পাশে পুকুর। পুকুরের চারদিকে ছোট ছোট গর্তে পাখির বাসা। এসব বাসায় সারা দিন অসংখ্য পাখি ঢোকে আর বের হয়। ১১ বছরের শিশু সায়েম এমনই একটি বাসা থেকে পাখির ছানা আনতে গেলে সাপ কামড় দেয়। হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

আজ মঙ্গলবার সকালে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার নাগদাহ ইউনিয়নের বারোঘরিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মৃত সায়েম বারোঘরিয়া গ্রামের মুদি ব্যবসায়ী শাবান আলী ও চম্পা খাতুন দম্পতির একমাত্র ছেলে। সায়েম বারোঘরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য শাহীনুর আলম বলেন, সায়েম তাঁর ছেলে আবদুল্লাহ সাঈদের সহপাঠী ছিল। সায়েম বরাবরই দুরন্ত ছিল। সেই দুরন্তপনা কাল হলো তার জন্য। আজ সকালে পরিবারের সদস্যদের অগোচরে সায়েম পাখির ছানা ধরতে বাড়ির পাশে পুকুরে যায়। সেখানে একপাড়ে একটি গর্তে ছানা ধরতে হাত দিলে ভেতরে থাকা বিষধর সাপ তাকে কামড় দেয়। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পথেই তার মৃত্যু হয়।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, শিশুটিকে হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন