default-image

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারীতে আবু ইউনুছ মোহাম্মদ সহীদুন্নবী জুয়েলকে (৫০) পিটিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গতকাল বৃহস্পতিবার আরও এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে এ পর্যন্ত মোট ৩৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হলো।
পাটগ্রাম পৌরসভার কলেজ মোড় থেকে গতকাল মো. রাসেল ইসলাম (২২) ওরফে রাজ নামের ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি উপজেলার বুড়িমারী ইউনিয়নের জুম্মাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ও হামিদুল ইসলামের ছেলে। আজ শুক্রবার তাঁকে আদালতের মাধ্যমে লালমনিরহাট কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
গত ২৯ অক্টোবর সন্ধ্যায় বুড়িমারী মসজিদে পবিত্র কোরআন অবমাননার অভিযোগ তুলে রংপুরের শালবন এলাকার আবু ইউনুছ মোহাম্মদ সহীদুন্নবীকে পিটিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় গত ৩১ অক্টোবর নিহত ব্যক্তির চাচাতো ভাই সাইফুল আলম, পাটগ্রাম থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শাহজাহান আলী ও বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত বাদী হয়ে পৃথক পৃথক তিনটি মামলা করেন। ঘটনাস্থলের ভিডিও ফুটেজ ও তদন্ত করে আসামি শনাক্ত করে অভিযান চালিয়ে ওই তিন মামলায় এ পর্যন্ত ৩৫ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত একজন পাটগ্রাম পৌর সভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা ও বাকি ৩৪ জনই বুড়িমারী ও শ্রীরামপুর এলাকার বাসিন্দা। এই তিনটি মামলার তদন্তের দায়িত্ব জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখাকে (ডিবি) দেওয়া হয়েছে।
ওই তিন মামলায় এ পর্যন্ত ৩৫ জনকে গ্রেপ্তারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন লালমনিরহাট জেলা ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0