ঘাটসংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বিগত ঈদগুলোতে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে যাত্রী ও যানবাহনের উপচে পড়া ভিড় থাকত। নদী পারপারের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘাট এলাকায় আটকে থেকে চরম ভোগান্তির শিকার হতো ঘরমুখী যাত্রীরা। তবে এবারের ঈদে ঘাটের চিত্র অনেকটা ভিন্ন। মূলত পদ্মা সেতু চালু হওয়ার কারণে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ কমেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত পাটুরিয়ায় ঘরমুখী যাত্রীর সংখ্যা কম ছিল। তবে আজ সকাল সাতটা থেকে ফেরি ও লঞ্চের যাত্রীর চাপ বেড়ে যায়। যাত্রীদের অধিকাংশই পোশাকশ্রমিক। তাঁরা সাভার, আশুলিয়া, নবীনগর ও গাজীপুরের বিভিন্ন পোশাক কারখানায় কাজ করেন।

সকাল ১০টার দিকে পাটুরিয়ার তিন নম্বর ফেরিঘাটে কথা হয় পোশাকশ্রমিক রাশেদুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি আশুলিয়া থেকে স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে রাজবাড়ী গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। তিনি বলেন, ‘গতকাল বৃহস্পতিবার গার্মেন্টস ছুটি হলেও কেনাকাটা করতে হয়েছে। এ কারণে আজ সাতসকালে বাড়িতে যাচ্ছি। এবার রাস্তায় আটকেও থাকতে হয়নি।’

default-image

ঈদের এক দিন বাকি থাকলেও পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় যাত্রীবাহী বাসের সংখ্যা কম দেখা গেছে। এ কারণে ঘাটে আসার এক ঘণ্টার মধ্যেই বাসগুলো ফেরির নাগাল পাচ্ছে।

ফরিদপুরগামী গোল্ডেন লাইন পরিবহনের যাত্রী আশরাফুল আলম বলেন, ‘গত ঈদের আগে বাড়িতে যাওয়ার সময় ছয় ঘণ্টা ঘাটে আটকে ছিলাম। আজ ঘাটে আসার আধা ঘণ্টা পর বাস ফেরিতে উঠে পড়েছে।’

এদিকে লঞ্চঘাটেও ঘরমুখী যাত্রীদের ভিড় বেড়েছে। পাটুরিয়া লঞ্চঘাটের সুপারভাইজার পান্না লাল নন্দী বলেন, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে ২০টি লঞ্চ দিয়ে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে।

সকাল ১০টার দিকে মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আবদুল লতিফ ঘাট এলাকায় পরিদর্শনে আসেন। তিনি বলেন, ঘাট এলাকায় যাত্রীর চাপ থাকলেও ভোগান্তি ছাড়াই নির্বিঘ্নে নদী পারাপার চলছে। লঞ্চে ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী পারাপারের বিষয়ে লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করা হয়েছে। ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী ওঠানো হলে বা অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) শাহ মো. খালেদ নেওয়াজ বলেন, আজ সকাল থেকে ঘাট এলাকায় যাত্রীর চাপ বেশি। তবে পর্যাপ্ত ফেরি থাকায় কোনো রকম ভোগান্তি ছাড়াই নির্বিঘ্নে যাত্রীরা নদী পার হচ্ছে। বর্তমানে ২৯টি ফেরি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন