ঈদের এক সপ্তাহের বেশি সময় বাকি। এখনই পাটুরিয়ায় যাত্রীবাহী বাসের চাপ বাড়তে শুরু করেছে। পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বেলা দুইটা পর্যন্ত যাত্রীবাহী বাসগুলো পাটুরিয়া-উথলী সংযোগ সড়কে প্রায় দেড় কিলোমিটার যানজটে আটকা পড়েছে। এসব বাসের অধিকাংশ যাত্রী ঈদের আগে ভোগান্তি এড়াতে গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। তবে ভোগান্তি তাঁদের পিছু ছাড়েনি।

বেলা একটার দিকে পাটুরিয়ার ৩ নম্বর ঘাটের অভিমুখে ফেরির অপেক্ষায় ছিল বিভিন্ন পরিবহনের ৩০-৩৫টি যাত্রীবাহী বাস। এ সময় ছবি তুলতে গেলে সাকুরা পরিবহনের একটি বাসের সুপারভাইজার সেলিম হোসেন বলেন, ‘ভাই, ছবি তুইল্যা আর কী হবে! অবস্থার তো কোনো পরিবর্তন হয় না। ঘাটে এসে সেই দীর্ঘ সময় আটকা থাকতে হয়।’

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের এলাকা থেকে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার মানুষের যাতায়াতের অন্যতম নৌপথ এটি।

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের বাংলাবাজার নৌপথে গত আগস্ট থেকে পণ্যবাহী ট্রাক ও যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ কারণে ওই পথের যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাকও পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে পদ্মা পাড়ি দিয়ে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছে। এতে করে ঈদের আগে এই নৌপথে যাত্রীবাহী বাসের চাপ বেড়ে গেছে।

এ নৌপথে আজ দুপুর পর্যন্ত ১৯টি ফেরির মধ্যে ১৭টি ফেরি যানবাহন পারাপার করছে। বাকি দুটি ফেরি যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে পাটুরিয়ায় ভাসমান কারখানায় মেরামতে রয়েছে। এ ছাড়া পাটুরিয়ার পাঁচটি ঘাটের মধ্যে চারটি ঘাট সচল রয়েছে। ২ নম্বর ঘাটে আজকেও পন্টুন স্থাপন করা হয়। সচল চারটি ঘাটের মধ্যে ৩ ও ৪ নম্বর ঘাটে যাত্রীবাহী বাস, ৫ নম্বর ঘাটে ব্যক্তিগত ও ছোট গাড়ি এবং ১ নম্বর ঘাটে মালবাহী গাড়ি পারাপার করা হচ্ছে।

যাত্রী ও পরিবহনের শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঈদের আগে এ নৌপথে গাড়ির চাপ কয়েক গুণ বেড়ে যাবে। সে সময় প্রচণ্ড গরমে যাত্রীদের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হবে। ফেরির সংখ্যা না বাড়ালে ঈদের আগে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে।

এসব বিষয়ে বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের উপমহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) শাহ মো. খালেদ নেওয়াজ প্রথম আলোকে বলেন, গত দুই বছর করোনার বিধিনিষেধ থাকায় এবার ঈদে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ায় নৌপথে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়বে।

যানবাহনের এই বাড়তি চাপ সামাল দিতে এবং যাত্রীদের নির্বিঘ্ন পারাপার করতে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হবে। বর্তমানে ১৯টি ফেরি রয়েছে। আগামী দু-এক দিনের মধ্যে আরও দুটি ফেরি বহরে যুক্ত হবে। এ ছাড়া আগামী দু–এক দিনের মধ্যে ২ নম্বর ঘাটটিও সচল হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন