বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত মঙ্গলবার ও গতকাল বুধবার উপজেলার আগ্রা, হরশুয়া, সেনগাঁওসহ কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, গ্রামের নিম্নবিত্ত পরিবারের বেশির ভাগ গৃহিণী দল বেঁধে খোলা জায়গায় বসে কৃষকের পাটগাছ থেকে পাট ছাড়ানোর কাজ করছেন। আগ্রা গ্রামের জুলেখা বেগম (৪৭) বলেন, প্রতিদিন পাট ছিলে দিয়ে ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা মূল্যের সমান পাটখড়ি পাওয়া যায়। আশ্বিনের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত পাটের আঁশ ছাড়ানোর কাজ চলবে। এ বছর প্রায় আট হাজার টাকা আয় হয়েছে বলে জানান জুলেখা।

তিন সপ্তাহ ধরে গ্রামের ডোবা-পুকুরে জাগ দেওয়া পাট থেকে আঁশ ছাড়াচ্ছেন নারীরা। দহগাঁ গ্রামের তমা রানী (৫০) বলেন, শ্রাবণ মাসে পাট জাগ দেওয়া শেষ হয়। ভাদ্র-আশ্বিন মাসে তিন থেকে ছয় সপ্তাহ পাটের আঁশ ছাড়ানোর কাজ করেন।

উপজেলার সিঙ্গারোল গ্রামের লোকমান আলী (৩০) ও দহগাঁ গ্রামের ইদরিশ আলী (৪৬) নারীদের কাছে থেকে পাইকারি দরে পাটখড়ি কেনেন। তাঁরা জানান, গ্রামে গিয়ে বিক্রেতার বাড়ি থেকে এক বান্ডিল আধা শুকনা পাটখড়ি ১৪০ থেকে ১৭০ টাকায় কেনেন। পরে সেগুলো বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিক্রি করেন। এখনো অনেক বাড়িতে পাটখড়ি দিয়ে রান্নার কাজ হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন