default-image

পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক সাংবাদিকদের প্রশ্ন করে বলেছেন, ‘বাংলাদেশে কোথায় দুর্নীতি হয় না? এটা অ্যাডিকশনের (আসক্তি) মতো হয়েছে। চুরি বন্ধ করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আপনারা যদি কোথাও শোনেন মন্ত্রী চুরি করেন, তাহলে আপনারা প্রশ্ন করেন।’

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে কুষ্টিয়ায় গড়াই নদ খনন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। গড়াই খননে অনিয়ম দুর্নীতি হয়—এক সাংবাদিক এমন প্রশ্ন করলে জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে জনগণের টাকাতেই তো সরকার চলে। জনগণকে সেবা দেওয়ার দায়িত্ব সরকারের। পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে এই গড়াই খননকাজ সরেজমিন দেখতে এসেছি। আপনারা যদি আগেই দোষ খোঁজেন, তাহলে কোথায় যাব?’

প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে পজিটিভ (ইতিবাচক) রিপোর্ট দেবেন। পজিটিভ রিপোর্ট করলে দেশ এগিয়ে যাবে। নেগেটিভ রিপোর্ট দিয়ে কাজে উৎসাহ হারিয়ে দিলে কীভাবে কাজ করব?’

default-image

এরপর প্রতিমন্ত্রী ইঞ্জিনচালিত নৌকাযোগে গড়াই নদ ঘুরে ঘুরে খননকাজ দেখেন। পরিদর্শন শেষে প্রতিমন্ত্রী প্রথম আলোকে বলেন, ‘কাজের অগ্রগতি দেখে খুবই ভালো লাগছে। আমি কাজ দেখে স্যাটিসফাইড (সন্তুষ্ট)। কাজ যেহেতু চলমান, খনন চলতেই থাকবে। একদিকে খনন করা হচ্ছে, পরের বছর ভরাট হয়ে যাচ্ছে। সাতটা খননযন্ত্র দিয়ে কাজ করা হচ্ছে। গড়াই তার আগের চেহারায় ফিরে যাবে। খননের ফলে ইতিমধ্যে সুন্দরবন এলাকায় লবণাক্ততার হার ১০ থেকে ৬ শতাংশ নিচে চলে আসছে।’

বিজ্ঞাপন

প্রতিমন্ত্রী খননকাজে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের সঠিক সময়ে কাজ শেষ করার পরামর্শ দেন। একই সঙ্গে প্রতিদিনের খননের পরিমাণ জানানোর নির্দেশ দেন। এ সময় পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পাউবো সূত্র জানায়, প্রায় ৬২৯ কোটি টাকা ব্যয়ে গড়াই খনন প্রকল্পের কাজ চলছে। ২০১৮ সালের অক্টোবর মাস থেকে কাজ শুরু হয়েছে। ২০২২ সালের জুনে এ প্রকল্পের কাজ শেষ করার কথা রয়েছে। গড়াইয়ে ৪৩ কিলোমিটার দীর্ঘ খনন হবে। পাশাপাশি বিভিন্ন জায়গায় বাঁধ নির্মাণ করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন