বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাজা পাওয়া ব্যক্তিরা হলেন নন্দনপুর ইউনিয়নের মাহমুদপুর গ্রামের ওয়াশিম মুন্সি (৩৯), গোবিন্দপুর গ্রামের মো. মোস্তফা (৪২), শাহাদুল হোসেন (৩৯) ও মিরাজুল ইসলাম (৪৩)। তাঁদের মধ্যে রায় ঘোষণার সময় ওয়াশিম ও শাহাদুল আদালতে উপস্থিত ছিলেন। অপর দুই আসামি পলাতক। তবে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় আদালত ওই মামলার ১৯ জনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০০৬ সালের ১৯ অক্টোবর রফিকুল ইসলাম পাশের সুন্দরকান্দি গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে যান। ওই দিন রাতেই পূর্বশত্রুতার জেরে আসামিরা তাঁকে শ্বশুরবাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে কুপিয়ে হত্যার পর ধানখেতে লাশ ফেলে রাখেন। পরদিন সকালে স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ২৬ অক্টোবর সাঁথিয়া থানার উপপরিদর্শক আজিজুর রহমান বাদী হয়ে ২৫ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন। পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ২৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। আদালত দীর্ঘদিন শুনানি ও সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে মঙ্গলবার রায় দেন।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী দেওয়ান মজনুল হক রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, রায়ের সময় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে দুজন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তাঁদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন