পিচ পোড়ানোর কালো ধোঁয়ায় ক্লাসে বসে থাকা দায়

পিচ পোড়ানোর কালো ধোঁয়া গিয়ে ঢুকছে বিদ্যালয়ে। সম্প্রতি চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার আব্দুল কাদের চৌধুরী নারী কল্যাণ শিক্ষালয়ের পাশে
ছবি: প্রথম আলো

সড়কের পাশে পিচ পোড়ানোর কালো ধোঁয়ায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার আব্দুল কাদের চৌধুরী নারী কল্যাণ শিক্ষালয়ের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকেরা দূষণের শিকার হচ্ছেন। তাঁরা অতিষ্ঠ হয়ে আবেদন করেও কোনো প্রতিকার পাচ্ছেন না।

উপজেলার কানসাট-খাসেরহাট সড়কের চামাবাজারের নারী কল্যাণ মোড়ের কাছেই আব্দুল কাদের নারী কল্যাণ শিক্ষালয়ের (বালিকা উচ্চবিদ্যালয়) অবস্থান। এই সড়কে চলছে পিচ কার্পেটিংয়ের কাজ। সংস্কারকাজের জন্য বিদ্যালয়ের সামনে ১৫ দিন ধরে পোড়ানো হচ্ছে পিচ। এতে কালো ধোঁয়ায় ক্লাসে বসা ছাত্রীরা দূষণের শিকার হচ্ছে।

রোববার বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক মুহাম্মদ উল্লাহ চৌধুরী বলেন, বৃহস্পতিবার থেকে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের নির্বাচনী পরীক্ষা চলছে। এর মধ্যে কালো ধোঁয়া যখন ঢুকছে, তখন লেখা বাদ দিয়ে পরীক্ষার্থীরা হাত দিয়ে নাক-মুখ চেপে ধরছে।

বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ের সামনে গিয়ে দেখা যায়, পিচ পোড়ানোর কালো বিষাক্ত ধোঁয়া বাতাসের তোড়ে গিয়ে ঢুকছে শ্রেণিকক্ষগুলোতে। সেখানে কথা হয় ১০ম শ্রেণির ছাত্রী আতিকা খাতুন, নিশা খাতুন, নবম শ্রেণির ছাত্রী নুসরাত খাতুন, অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী নাবিলা খাতুনের সঙ্গে। তারা জানায়, কালো ধোঁয়ায় তাদের চোখ জ্বালা করে। দম বন্ধ হয়ে আসে। বমি বমি ভাব হয়।

বিদ্যালয়টির ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ফেরদৌস রহমান প্রথম আলোকে বলেন, পিচ পোড়ানোর কালো ধোঁয়ায় পরিবেশদূষণে ছাত্রীদের চরম সমস্যার কথা ঠিকাদার তৌফিকুল ইসলাম ও এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী হারুনুর রশিদকে জানানো হয়েছে। তবে কোনো প্রতিকার হয়নি।

ঠিকাদার তৌফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, কোনো ফাঁকা স্থান না পেয়ে বাধ্য হয়ে বিদ্যালয়ের সামনের স্থানটি বেছে নিয়ে তাঁরা পিচ পোড়াচ্ছেন।

প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ বলেন, কাজ করার স্থান নির্বাচন করার বিষয়টি ঠিকাদারের ওপর নির্ভর করে। উন্নয়নকাজের জন্য মানুষের একটু অসুবিধা হলে তা মেনে নেওয়ার আবেদন জানান তিনি। তবে এই কাজ দুই-তিন দিনের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে। এরপরও শিক্ষার্থীদের অসুবিধার বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়া হবে।