বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পিরোজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইদুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, নাসির উদ্দিন মাতুব্বরের কাছ থেকে ১টি পিস্তল, ১০ রাউন্ড গুলি ও ২টি ম্যাগাজিন জব্দ করা হয়েছে। এ ছাড়া ঘটনাস্থল থেকে তিনটি গুলির খোসা জব্দ করা হয়। তবে নাসির উদ্দিন মাতুব্বর দাবি করেছেন তাঁর পিস্তলের লাইসেন্স আছে।

গতকাল রাত পৌনে আটটায় সদর উপজেলার শংকরপাশা গ্রামের মল্লিকবাড়ি বাসস্ট্যান্ডে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় পিরোজপুর পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহাবুব গুলিবিদ্ধ হন।

এ ঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। এদিকে আজ দুপুরে গুরুতর আহত ফয়সাল মাহাবুবকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ থেকে হেলিকপ্টারযোগে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

মামলার বাদী তোফাজ্জেল হোসেন মল্লিক বলেন, ‘আমার পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির উদ্দিন মাতুব্বর যুবলীগ নেতা ফয়সাল মাহাবুবকে গুলি করেন। এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় আমার কয়েকজন কর্মী আহত হয়েছেন।’
পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আ জ ম মাসুদুজ্জামান বলেন, নাসির উদ্দিন মাতুব্বর আহত হওয়ায় তাঁকে পুলিশি হেফাজতে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হয়েছে।

১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপে শংকরপাশা ইউনিয়নের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ ইউনিয়নে চারজন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী তোফাজ্জেল হোসেন মল্লিকের পক্ষে মাঠে নেমেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সাংসদ এ কে এম এ আউয়াল। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নাসির উদ্দিন মাতুব্বর পিরোজপুর-১ আসনের সাংসদ এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের অনুসারী।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন