বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এনামুল তাঁর স্ত্রী রেশমা বেগম ও দুই সন্তানকে নিয়ে পৌরসভার ভাইজোড়া মহল্লার জামাল সিকদারের বাড়িতে ভাড়ায় থাকতেন। দুই মাস আগে রেশমা বেগম তাঁর দেবর রাকিব শেখের সঙ্গে পালিয়ে গিয়েছিলেন। পরে এনামুল আবার তাঁর স্ত্রী রেশমা বেগমকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। এর মধ্যে গতকাল বিকেলের দিকে প্রতিবেশীরা এনামুলের ঘর থেকে রেশমা ও রাকিবকে বের হতে দেখেন। এ সময় প্রতিবেশীদের সন্দেহ হলে কিছুক্ষণ পর তাঁরা ওই বাড়িতে গিয়ে দেখেন, ঘরের মেঝেতে অচেতন অবস্থায় পড়ে আছেন এনামুল।

এরপর প্রতিবেশীরা উদ্ধার করে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে।

পিরোজপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসক তন্ময় মজুমদার বলেন, এনামুল শেখকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

পিরোজপুর পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আনোয়ারুল কবির সিকদার বলেন, এনামুল শেখের স্ত্রী রেশমা ও ভাই রাকিবের পরকীয়া সম্পর্ক নিয়ে পারিবারিক কলহ চলছিল। দুই মাস আগে রেশমা রাকিবের সঙ্গে পালিয়ে গিয়েছিলেন।

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আ জ ম মাসুদুজ্জামান বলেন, লাশের শরীরের কয়েক জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আজ সকালে এনামুলের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পিরোজপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহত এনামুলের বড় ভাই হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশ বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন