default-image

পিরোজপুর পৌরসভার মেয়র হাবিবুর রহমান ওরফে মালেক ও তাঁর স্ত্রী নিলা রহমানসহ ২৮ জনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এর মধ্যে একটি মামলায় পৌর মেয়র ও তাঁর স্ত্রীকে এবং অন্য মামলায় মেয়র ছাড়াও পৌরসভার ২৭ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে আসামি করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বরিশালে দুদকের সমন্বিত কার্যালয়ে মামলা দুটি করা হয়। দুদকের উপপরিচালক আলী আকবর মামলা দুটি করেন।

দুদক সূত্র জানায়, একটি মামলায় মেয়র হাবিবুর রহমান ও তাঁর স্ত্রী নিলা রহমানের বিরুদ্ধে তাঁদের জ্ঞাত আয়বহির্ভূত ৩৬ কোটি ৩৪ লাখ ৭ হাজার ৯৩২ টাকার সম্পদ থাকার অভিযোগ আনা হয়েছে। অপর মামলায় মেয়র হাবিবুর রহমান ও পিরোজপুর পৌরসভার কাউন্সিলর আবদুস সালাম ওরফে বাতেনসহ পৌরসভার ২৭ জন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পৌরসভার একটি নিয়োগে অবৈধভাবে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ আনা হয়।

একটি মামলায় মেয়র হাবিবুর রহমান ও তাঁর স্ত্রী নিলা রহমানের বিরুদ্ধে তাঁদের জ্ঞাত আয়বহির্ভূত ৩৬ কোটি ৩৪ লাখ ৭ হাজার ৯৩২ টাকার সম্পদ থাকার অভিযোগ আনা হয়েছে।

এ মামলায় অন্য আসামিরা হলেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপপরিচালক (সাবেক) তরফদার সোহেল রহমান, পৌরসভার কাউন্সিলর জেলা বিএনপির সহসভাপতি আবদুস সালাম ওরফে বাতেন, পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী আবু হানিফ, পৌরসভার সচিব (অন্যত্র বদলি) মাসুদ আলম, হিসাবরক্ষক মাইনুল ইসলাম, সহকারী কর আদায়কারী মাহবুবুর রহমান, নিম্নমান সহকারী শারাফাতুন মান্নান, সহকারী কর নির্ধারক ওয়াদুদ খান, সহকারী কর নির্ধারক মিজানুর রহমান, টিকাদানকারী ফরহাদ হোসেন মল্লিক, সহকারী কর আদায়কারী মেহেদি হাসান, সহকারী কর আদায়কারী রাশিদা বেগম, বাজার আদায়কারী রাজু আহমেদ, বাতি পরিদর্শক রবিউল আলম, অফিস সহকারী মাকসুদা খানম, ফটোকপি অপারেটর আনোয়ার হোসেন, টিকাদানকারী জামিউল হক, টিকাদানকারী লাইজু আক্তার, টিকাদানকারী রেক্সোনা মজুমদার, টিকাদানকারী জান্নাতুল ফেরদৌসী, নৈশ প্রহরী ফজলুল হক, নৈশ প্রহরী নজরুল ইসলাম, পিয়ন খাদিজা বেগম, পিয়ন দীপক কুমার পাল, সহকারী কর আদায়কারী মিজানুর রহমান মিন্টু এবং প্রহরী রণজিৎ।

বিজ্ঞাপন
পৌরসভার ২৫ জন কর্মচারী নিয়োগে প্রত্যেকের কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা করে ঘুষ গ্রহণ, বাস ও মিনিবাস থেকে অবৈধ চাঁদা আদায়, এলাকায় সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ঠিকাদারি করার অভিযোগ মেয়র হাবিবুর রহমান ও পিরোজপুর পৌরসভার কাউন্সিলর আবদুস সালাম ওরফে বাতেনসহ পৌরসভার ২৭ জন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।
আলী আকবর, উপপরিচালক, দুদক

দুদক উপপরিচালক আলী আকবর বলেন, গত ২৭ ডিসেম্বর দুদক মেয়র ও তাঁর স্ত্রীর সম্পদের বিবরণী চেয়ে তাঁকে, স্ত্রী মিসেস নিলা রহমান, মেয়ে নওরীন আক্তার ও ছেলে ফয়সাল রহমানের নাম উল্লেখ করে তাঁদের জ্ঞাত সম্পদের হিসাব ও তথ্য বিবরণী চেয়ে একটি নোটিশ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে পৌরসভার ২৫ জন কর্মচারী নিয়োগে প্রত্যেকের কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা করে ঘুষ গ্রহণ, বাস ও মিনিবাস থেকে অবৈধ চাঁদা আদায়, এলাকায় সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ঠিকাদারি করার অভিযোগ করে এ নোটিশ প্রদান করা হয়। ওই নোটিশের যথাযথ উত্তর না পাওয়ায় কমিশন তাঁকে (উপপরিচালক আলী আকবর) এ বিষয়ে অনুসন্ধানের জন্য দায়িত্ব দেয়। অনুসন্ধান শেষে আজ তিনি ওই দুটি মামলা দায়ের করেন।

পিরোজপুর পৌরসভার মেয়র হাবিবুর রহমান জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। তিনি গত পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেয়র নির্বাচিত হন। তিনি পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সাংসদ এ কে এম আউয়ালের ভাই। সাবেক সাংসদ আউয়াল ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধেও অবৈধ সম্পদ ও সরকারি জমি দখলের অভিযোগে ইতিমধ্যে পৃথক চারটি মামলা দায়ের করেছেন দুদক।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন