দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ৭১০ জন কাউন্সিলরের সবাই ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এর মধ্যে ৬৬৬টি ভোট বৈধ ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। ভোটে সাধারণ সম্পাদক পদে জিয়াউল ইসলাম ৩৮৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বাকাউল ইসলাম পান ২৮১ ভোট। অন্যদিকে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে ৪৬০ ভোট পেয়ে জিল্লুর রহমান নির্বাচিত হন। প্রতিদ্বন্দ্বী সুকুমার রায় পেয়েছেন ১৯৫ ভোট। বিকেল পাঁচটায় জেলা সভাপতি তৈমুর রহমান সভাপতি পদে জাহিদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক পদে জিয়াউল ইসলাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে জিল্লুর রহমানের নাম ঘোষণা করেন।

জেলা বিএনপির সহসভাপতি মো. নুর করিমকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, জেলা কমিটির সদস্য বদরুদ্দোজা ও জেলা আইনবিষয়ক সম্পাদক সারওয়ার হোসেনকে সদস্য করা হয়। এ ছাড়া ভোট পরিচালনায় জেলা বিএনপির সহসভাপতি ফারুখ হোসেন, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক মহিদুল ইসলাম ও দেলোয়ার হোসেন দায়িত্ব পালন করেন।

এর আগে গত ২৯ মার্চ একই জায়গায় উপজেলা ও পৌর বিএনপির দ্বিবার্ষিক সম্মেলন হয়। সেদিন সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে নতুন কমিটি গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক কাউন্সিলর উপস্থিত না থাকায় কমিটি গঠন ছাড়াই সম্মেলনের কার্যক্রম স্থগিত করেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমিন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন