মা ফিরোজা বেগম বলেন, ‘পুতে আমার পেত্তেক দিন ফোন দিয়া মা-বাহের খোজ লোইছে। যেদিন আগুন লাগছে, হে বেহানেও খোঁজ নিছে। ওর বাহের খবরও লোইছে। বড় বোইনের লগেও কতা কোইছে।’ বাবা আক্ষেপ করে বলেন, ‘আইজ নদী সব ভাইঙা না নিলে, এই পুতে রে কি কাজে পাডাই? পুতে আমার সাত রাজার ধন আছিল। নোমান আমার বুড়া বয়সের ধন। ও আল্লাহ আর কত পরীক্ষা!’

হাসেম ফুডস লিমিটেডের কারখানায় ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার ১৮ জন কাজ করতেন। এর মধ্যে ৭ জন নিখোঁজ আছে। বাকি ১১ জনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। নিখোঁজ আছে নোমানের খালাতো ভাই তাজউদ্দিনের ছেলে মো. রাকিবও (১৬)।

এ্যাওয়াজপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মাহবুব আলম বলেন, তাঁর ইউনিয়নের একজন নিখোঁজ। সাতজন আহত। তাঁরা প্রত্যেকে অসহায়। তাঁদের সাহায্য করা দরকার।

চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো রুহুল আমিন বলেন, নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক নিখোঁজ, নিহতের পরিবার ও আহত ব্যক্তিদের পরিবারকে অর্থসহায়তা দেবেন। চরফ্যাশন থেকে চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলে অন্য ভাতা দেওয়া হবে।