default-image

ব্যালট পেপার ছিনতাই ও পাল্টাপাল্টি হামলার ঘটনায় স্থগিত হওয়া কিশোরগঞ্জ পৌরসভার একটি কেন্দ্রের পুনর্নির্বাচনের ভোট গ্রহণ চলছিল। অনিয়মের অভিযোগ তুলে পুনর্নির্বাচনের ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী মো. ইসরাইল মিঞা। আজ শনিবার বেলা দুইটার দিকে জেলা শহরের স্টেশন রোড এলাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। সকাল আটটা থেকে শুরু হয়ে ভোট চলে বিকেল চারটা পর্যন্ত।

মো. ইসরাইল মিঞা বলেন, ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা নগ্নভাবে ভোটকেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তার করে কেন্দ্রে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেন। সকাল থেকেই বিএনপির এজেন্ট ও ভোটারদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে ভোটদানে বাধা দেওয়া হয়েছে। তিনি নির্বাচন থেকে সরে না দাঁড়ালে রক্তারক্তি ও খুনোখুনি হতো। তাই তিনি শান্তি–শৃঙ্খলা রক্ষার্থে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম, সহসভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খালেদ সাইফুল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল আলম, পৌর বিএনপির আহ্বায়ক আশফাকুল ইসলাম, যুগ্ম আহ্বায়ক মাহবুবুল আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

বেলা সাড়ে তিনটার দিকে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশ্রাফুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, সকাল থেকেই এই কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ চলছে। ভোটকেন্দ্রে কোনো অনিয়ম বা কোনো দলের আধিপত্য বিস্তারের বিষয়টিও তাঁর চোখে পড়েনি। বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জনের বিষয়টি তিনি এই প্রতিনিধির কাছ থেকে জেনেছেন।

১৬ জানুয়ারি কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ হয়। ব্যালট পেপার ছিনতাই ও আওয়ামী লীগ-বিএনপির পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনায় জেলা শহরের ওয়ালী নেওয়াজ খান কলেজের পূর্ব তিনতলা ভবন কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছিল। স্থগিত ঘোষণা করেছিলেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশ্রাফুল আলম।

স্থগিত হওয়া কেন্দ্র বাদে ২৭টি কেন্দ্রের ঘোষিত বেসরকারি প্রাথমিক ফলে মেয়র পদে এগিয়ে ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র মো. পারভেজ মিয়া।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন