বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ওই ব্যক্তি মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় কয়েক দিন ধরে এই এলাকায় ছিলেন। রাতে এখানে এসে ঘুমাতেন। এলাকাবাসী খাবার দিতেন। এলাকাবাসী কেউ তাঁর নাম–পরিচয় দিতে পারেননি। তবে তিনি হিন্দু ধর্মাবলম্বী বলে তাঁরা জানতে পেরেছেন।

পবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ফরিদ হোসেন বলেন, ওই ব্যক্তির গায়ে আঘাতের কোনো চিহ্ন ছিল না। ধারণা করা হচ্ছে, বার্ধক্যের কারণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। তাঁর লাশ রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে। তাঁর স্বজনদের পাওয়া গেলে তাঁদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন