বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

লালমনিরহাট জেলা বিএনপির সভাপতি আসাদুল হাবিব আরও বলেন, এই সরকার বিনা ভোটের সরকার। এই সরকারের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ কোনো স্তরেই কোনো ধরনের জবাবদিহি নেই। সে জন্য এমন জঘন্য ঘটনা ঘটেছে। এটা মেনে নেওয়া যায় না। আর এই অন্যায়ের প্রতিবাদ করা নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকার, এলাকার মানুষ সেটাই করেছে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, পুলিশের হেফাজতে রবিউলের মৃত্যুর অভিযোগ ওঠায় পুলিশের পক্ষ থেকে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তাকে (লালমনিরহাট সদর থানার এসআই হালিমুর রহমান) লালমনিরহাট জেলা পুলিশ লাইনসে ক্লোজড করা হয়েছে, এটা কোনো শাস্তি নয়।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন রবিউলের বাবা দুলাল খান, মা সাফিয়া বেগম, রবিউলের স্ত্রী মনিরা আখতার, লালমনিরহাট জাতীয়তাবাদী যুবদলের সাবেক সভাপতি আফজাল হোসেন প্রমুখ। আসাদুল হাবিব নিহত রবিউলের কবর জিয়ারত করেন ও তাঁর আত্মার শান্তির জন্য দোয়া করেন। পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান।
এর আগে শনিবার দুপুরে লালমনিরহাট-৩ সদর আসনের সাংসদ ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের নিহত রবিউলের পরিবারের খোঁজ নিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করার কথা বলেন।

গত বৃহস্পতিবার পয়লা বৈশাখের রাতে মেলায় যান রবিউল ইসলাম খান। সেখানে জুয়াড়ি সন্দেহে রবিউলকে আটক করে এসআই হালিমুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল। পরে পুলিশের হেফাজতে থাকা অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, আটকের পর রবিউলকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে হত্যা করেছেন পুলিশের সদস্যরা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন