বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আলমগীর কবির অভিযোগ করেন, ‘ভোট যত এগিয়ে আসতে থাকে, ততই সুষ্ঠু ভোট হওয়ার শঙ্কা বাড়তে থাকে। আজ ভোটের দিন এসে সেই শঙ্কা সত্য হলো। ভোট শুরু হলেও কোনো কেন্দ্রে আমার এজেন্টকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের কাছে নালিশ করে সাড়া পাইনি। পরে দেখলাম, সদস্যদের ব্যালট বুথে নিতে পারলেও চেয়ারম্যান পদের ব্যালট নৌকার সমর্থকেরা রেখে দেন। পরে প্রকাশ্যে সিল মেরে ব্যালট বাক্সে ফেলা হচ্ছে। এই যদি হয় কেন্দ্রের চিত্র, তাহলে তো আর নির্বাচনের প্রয়োজন নেই।’

হিলচিয়া ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী চারজন। নৌকার হয়ে লড়ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান মাজহারুল হক। আলমগীরের প্রতীক আনারস। অপর দুই প্রার্থী হলেন হাতপাখা প্রতীকের সেলিম হায়দার ও আম প্রতীকের মিজানুর রহমান। আলমগীর কবির ভোট থেকে সরে এলেও অপর দুই প্রার্থী ভোটে রয়েছেন।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য এই নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা হুমায়ুন কবিরের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাঁকে পাওয়া যায়নি।

তবে নৌকার প্রার্থী মাজহারুল হক নৌকার পক্ষে প্রকাশ্যে সিল মারার অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, নিশ্চিত পরাজিত হবেন জেনে অনেকে আগেভাগে সরে গিয়ে থাকতে পারেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন