বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আবদুল মান্নান মিয়া ও সেলিম হোসেনের বাড়ি পাশাপাশি। তাঁদের দুই পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। আবদুল মান্নান তাঁর ছেলেদের নিয়ে গতকাল শনিবার বিকেলে বাড়ির সীমানায় বেড়া দেন। বেড়া দেওয়ার খবর পেয়ে সেলিম হোসেন ও তাঁর স্ত্রী আফরোজা লোকজন নিয়ে সেই বেড়া ভেঙে দিতে যান। এ সময় আবদুল মান্নান ও তাঁর দুই ছেলে বাধা দেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে সেলিম-আফরোজা দম্পতি ও তাঁদের লোকজন মান্নান এবং তাঁর ছেলেদের ওপর হামলা চালান। বেধম মারধরে আবদুল মান্নান গুরুতর আহত হন। আশপাশের লোকজন এ সময় মান্নানকে উদ্ধার করে কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠান। অবস্থার অবনতি হলে আজ ভোরে তাঁকে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় আজ সকালে মাজুখান এলাকায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত আফরোজা আক্তারকে আটক করে। নিহত মান্নানের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এলাকাবাসীর ভাষ্য, দুই পরিবারের মধ্যে বাড়ির সীমানা নিয়ে অনেক দিন ধরেই বিরোধ চলে আসছিল। এর আগেও কয়েকবার মান্নান পরিবারের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে কালিয়াকৈর থানায় মামলাও আছে।

কালিয়াকৈর থানার অধীন মৌচাক পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) সাইফুল আলম বলেন, ঘটনার পর থেকে সেলিম হোসেন ও তাঁর স্ত্রী পলাতক। আজ সকালে অভিযান চালিয়ে আফরোজা আক্তারকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন