বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জিডিতে জাকির হোসেন উল্লেখ করেন, গত বৃহস্পতিবার রাত ১২টা ৩০ মিনিটে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি/ব্যক্তিরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে জনি মিয়া নামে আইডি দিয়ে সম্মানহানির উদ্দেশ্যে তাঁর ছবির সঙ্গে র‍্যাবের ছবি সংযুক্ত করে মিথ্যা অপপ্রচার করে ভাবমূর্তি বিনষ্ট করছেন। এ ঘটনায় তিনি আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।

রাজু মিয়া নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে ওই অপপ্রচার চালানো হয়। এতে দেখা গেছে, মূলত একটি ছবি পোস্ট করা হয়েছে। যাকে প্রথম আলোর ফেসবুক পেজে শেয়ার করা সংবাদের মতো আদল দেওয়া হয়েছে। সেখানে প্রথম আলোর ফেসবুক পেজের নাম ও লোগো। এরপর লেখা, ‘কুমিল্লা, বরুড়ায় রাতের আঁধারে আড্ডা ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান জাকির হোসেন বাদলকে বিদেশি পিস্তল–গুলিসহ ঢাকায় যাওয়ার পথে আটক করেছে র‍্যাব।’ এরপর জুড়ে দেওয়া ছবিতে দেখা যায়, জাকির সাদা পায়জামা–পাঞ্জাবি পরা। দুই পাশে র‍্যারের দুই সদস্য দাঁড়ানো। শিরোনাম হিসেবে লেখা, ‘র‍্যাবের ফাঁদ, অস্ত্রসহ আটক হলো বরুড়া আড্ডা ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান জাকির হোসেন বাদল।’ যদিও প্রথম আলোয় এ ধরনের কোনো সংবাদ প্রকাশ হয়নি।

জাকির হোসেন বলেন, ‘সামনে নির্বাচন। একটি পক্ষ আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে গ্রহণযোগ্যতা পেতে প্রথম আলোর লোগো ও স্লোগান ব্যবহার করে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। আমি সাংসদ নাছিমুল আলম চৌধুরীর সৈনিক। আমাকে হেয় করার জন্য এ কাজ করা হয়। যাঁরা এই কাজ করেছেন, তাঁদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেওয়া হোক।’

বরুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার মজুমদার বলেন, এ ঘটনায় সাবেক চেয়ারম্যান জিডি করেছেন। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হচ্ছে। ভুয়া আইডি ব্যবহার করে যাঁরা এ কাজ করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন