বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আলী হায়দার চৌধুরী বলেন, প্রথম আলো শুরু থেকেই পাঠকের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে। প্রথম আলো ২৩ বছর ধরে সফলতার স্বাক্ষর রেখেছে। সেই সফলতার ধারা এখনো অব্যাহত রয়েছে। প্রথম আলোর জনপ্রিয় ফিচার পাতার জন্য পাঠকেরা এক সপ্তাহ ধরে অপেক্ষা করে, কখন নকশা, কখন ছুটির দিনে হাতে আসবে। প্রথম আলো চটকধার প্রতিবেদন করে না, বস্তুনিষ্ঠ তথ্য পরিবেশন করে, বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা করে।

অনুষ্ঠানে দৈনিক করতোয়ার সম্পাদক মোজাম্মেল হক বলেন, ‘প্রথম আলোর ওপর অনেক আঘাত, অনেক ঝড় গেছে। প্রথম আলোর ওপর অনেক চাপ আছে। প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের ওপর যেটা ঘটেছে, সেটাও সেই চাপের অংশ। রোজিনা সত্য প্রকাশ করতে গিয়ে নির্যাতিত হয়েছেন। সত্য তুলে ধরে দেশ-বিদেশে পুরস্কারও পেয়েছেন। সব বাধা পেরিয়ে প্রথম আলো এখন সারা দেশে এক নম্বর দৈনিক। প্রথম আলো দলনিরপেক্ষ পত্রিকা। প্রথম আলো গোপন তথ্য তুলে এনে দুর্নীতির খবর প্রকাশ করে। প্রথম আলো না থাকলে দুর্নীতির খবর আমরা পেতাম না। দেশের এত উন্নতির চিত্র দেখতে পেতাম না।’

কবি ও প্রাবন্ধিক বজলুল করিম বাহার অনুষ্ঠানে বলেন, প্রথম আলোর বড় শক্তি বস্তুনিষ্ঠ ও দলনিরপেক্ষ সাংবাদিকতা। প্রথম আলো নবীন ও প্রবীণ পাঠকদের কাছে আস্থার পত্রিকা। করোনাকালে প্রথম আলো বস্তুনিষ্ঠ খবর পরিবেশনের মাধ্যমে মানুষের কাছে সুসাংবাদিকতার উদাহরণ তৈরি করেছে।

লেখক ও প্রাবন্ধিক শোয়েব শাহরিয়ার অনুষ্ঠানে বলেন, ‘প্রথম আলো শুভ আলো হরণ করে নয়, বুকে ধারণ করে সেই আলো বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দিক, অনির্বাণ হয়ে জ্বলতে থাকুক, প্রথম আলোর শুভ আলোয় বিশ্ব আলোকিত হোক।’

সরকারি মুজিবুর রহমান মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ ওয়াহিদা জোহরা রহমান বলেন, প্রথম আলোর সুসাংবাদিকতার আলো প্রচণ্ড তীক্ষ্ণ। প্রথম আলো যাঁকে ফোকাস করে, যাঁর ওপর প্রথম আলোর তীক্ষ্ণ আলো পড়ে, তিনি এগিয়ে যান, তাঁর জীবন বদলে যায়। প্রথম আলো বদলের সহযোগী। তারুণ্যের শক্তি নিয়ে প্রথম আলো সাংবাদিকতার এ তীক্ষ্ণ আলো বিলিয়ে যাক।

বীর মুক্তিযোদ্ধা ও চিকিৎসক আরশাদ সায়ীদ বলেন, শুরু থেকেই প্রথম আলো মুক্তিযুদ্ধের কথা বলে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সাংবাদিকতা করে।

বগুড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহমুদুল আলম বলেন, প্রথম আলো এখন ২৪ বছরের তরুণ। মুক্তচিন্তা, মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়ে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার মধ্য দিয়ে প্রথম আলোর তারুণ্যের শক্তি নিয়ে প্রথম আলো আরও এগিয়ে যাক।

default-image

ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তা সৈয়দ আহম্মদ বলেন, প্রথম আলো সুসাংবাদিকতার মাধ্যমে মানুষ, সমাজ ও প্রতিষ্ঠানকে পাল্টে দেয়। প্রথম আলোর বড় শক্তি সুসাংবাদিকতা। প্রথম আলোর একটি বিজ্ঞাপনও পণ্যকে দ্রুত মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়। পত্রিকাটির মাধ্যমে ব্যবসায়িকভাবে সফলতা ছোঁয়া যায়।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন শওকত হায়াত খান, বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক ও নাট্যব্যক্তিত্ব তৌফিক হাসান, সরকারি শাহ এয়তেবারিয়া কলেজের অধ্যক্ষ ফারুক আহমেদ, সরকারি আজিজুল হক কলেজের শিক্ষক শফি মাহমুদ, মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা শফিক আমিন কাজল, বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আমজাদ হোসেন, সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি মাসুদার রহমান হেলাল, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (বগুড়া উত্তর জোন) শাহিনুর ইসলাম, বগুড়া বন্ধুসভার সভাপতি জিয়াউল ইসলাম প্রমুখ।

প্রথম আলোর বগুড়ার নিজস্ব প্রতিবেদক আনোয়ার পারভেজের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বগুড়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক শরিফুল ইসলাম। পরে অতিথিদের সঙ্গে নিয়ে ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটা হয় এবং মিষ্টিমুখ করানো হয়।
অনুষ্ঠানে আমরা কজন শিল্পীগোষ্ঠী, বি বয়েজ বগুড়া, রাকাব বগুড়া উত্তর জোন, চ্যানেল আই সেরা কণ্ঠের মেজবাহ বাপ্পি ছাড়াও নানা ব্যক্তি ও সংগঠনের পক্ষ থেকে প্রথম আলোর কর্মীদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো নয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন