মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ছাগলনাইয়া উপজেলার মো. অহিদ উল্যাহ ও মো. মুছা বেশ কয়েক বছর কাজের সূত্রে দুবাইয়ে একই এলাকায় ছিলেন। একই জেলার হওয়ায় দুজনের মধ্যে হৃদ্যতাও ছিল। মুছা দেশে আসার সময় অহিদ উল্যাহ তাঁর কাছে পরিবারের জন্য জিনিসপত্র দিতেন। সে কারণে তাঁদের দুই পরিবারের মধ্যে সম্পর্কও ভালো ছিল। গত মার্চে অহিদ উল্যাহ দুবাই থেকে দেশে আসেন। এ সময় মুছা তাঁর কাছে পরিবারের জন্য তিন জোড়া সোনার চুড়ি, একটি আইফোন ও বেশ কিছু প্রসাধনী সামগ্রী দেন। তবে সেগুলো মুছার বাড়িতে পৌঁছে দেননি অহিদ। উল্টো তাঁর বাড়িতে মুছার পরিবারের লোকজন আসলে তাঁদের অপমান ও গালাগালি করেন। মালামাল না পেয়ে মুছার শ্যালক কামরুল হাসান বাদী হয়ে অহিদ উল্যাহ, তাঁর স্ত্রী ও শ্যালকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলার পর অহিদ উল্যাহ পালিয়ে যান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ফেনী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নারায়ণ চন্দ্র দাস বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে গতকাল নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার সোনাগাছিয়া এলাকা থেকে অহিদ উল্যাহকে এবং ফেনী পৌরসভার বিরিঞ্চি এলাকা থেকে তাঁর শ্যালক সাইদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ সময় পুলিশ দুবাই থেকে প্রবাসী মুছার পাঠানো ছয়টি সোনার চুড়ির মধ্যে তিনটি চুড়ি ও একটি আইফোন ও তিনটি চুড়ি বিক্রির কিছু টাকা উদ্ধার করে। মামলার আরেক আসামি অহিদ উল্যাহর স্ত্রী পলাতক আছেন।

ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাঁদের আদালতে পাঠানো হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন