বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রংপুরে সয়াবিন তেলের কৃত্রিম সংকট দূর করতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা আফসানা পারভীনের নেতৃত্বে গতকাল রোববার দিনভর রংপুরের বিভিন্ন বাজারে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে সয়াবিন তেলের ডিলারদের সতর্ক ও বিভিন্ন গুদামে মজুত রাখা তেল আগের দামে বিক্রি করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। শহরের শাহী ভান্ডার, মণ্ডল স্টোর ও বাবুল স্টোরে মজুত করা সয়াবিন তেল বোতলের গায়ের দরে বিক্রি করার নির্দেশ দেওয়া হয় বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন আফসানা পারভীন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল পর্যন্ত ডিলারদের কাছ থেকে খুচরা ব্যবসায়ীদের তেল কিনতে হলে সঙ্গে চা ও আটা কিনতে হয়েছে। সংগত কারণে খুচরা ব্যবসায়ীরাও ক্রেতাদের ওপর সেই শর্ত চাপিয়ে দেন। ২০ লিটার রূপচাঁদা ব্র্যান্ডের তেলের বোতলে ২ কেজি চা–পাতা কেনার শর্ত ছিল। একই সঙ্গে রান্না তেলের ২০ লিটারের বোতলে ৩ কেজি চা–পাতা কিনতে হয়েছে ব্যবসায়ীদের। তবে আজ থেকে সেই শর্ত শিথিল করা হয়েছে।

ফ্রেশ ব্র্যান্ডের বোতলজাত তেলের ডিলার ঘোষ ভান্ডারের স্বত্বাধিকারী পার্থ ঘোষ প্রথম আলোকে বলেন, কোম্পানি থেকে তাঁদের এই শর্ত পূরণ করতে হয়েছে। তাই খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছেও তাঁরা এই শর্তে বিক্রি করেছেন। তবে আজ থেকে সেই শর্ত নেই। যার যার মতো তেল কিনতে পারছেন। এর সঙ্গে কোনো চা কিনতে হবে না। সেই সঙ্গে মজুত থাকা তেল আগের দামে বিক্রি করা হচ্ছে।

নবাবগঞ্জ বাজারের হেরণ স্টোরে গিয়ে দেখা গেল, তাঁরা ফ্রেশ ও পুষ্টি ব্র্যান্ডের বোতলজাত তেল বিক্রি করছেন। ৫ লিটারের ফ্রেশ তেলের গায়ে লেখা আছে ৯৮৫ টাকা, খুচরা ব্যবসায়ীর কাছে তা ২০ টাকা কমে ৯৬৫ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। একইভাবে ৩ লিটারের বোতলের গায়ের ৫৯৪ টাকার দর থেকে ১২ টাকা কমে ৫৮২ টাকা, ২ লিটারের বোতলের ৩৯৬ টাকার জায়গায় ৮ টাকা কমে ৩৮৮ টাকা এবং ১ লিটারের বোতলের ১৯৮ থেকে ৪ টাকা কমে ১৯৪ টাকা দরে ডিলারের কাছ থেকে কিনছেন খুচরা ব্যবসায়ীরা।

default-image

হেরণ স্টোরের মালিক হেরণ বণিক প্রথম আলোকে বলেন, ‘তেল কিনলে চা কিংবা আটা কিনতে হবে, এমন শর্ত থাকলেও এখন নেই। এই শর্ত কোম্পানির পক্ষ থেকে ছিল। বোতলজাত তেল গায়ের দামের থেকে কমিশন বাদ দিয়ে খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করা হচ্ছে।’

সরেজমিনে সিটি বাজারে দেখা গেছে, বোতলের গায়ের দরেই তেল বিক্রি করা হচ্ছে। তবে পরিচিতজনদের কাছে এই তেল বিক্রি করা হচ্ছে বলে প্রত্যক্ষ করা গেছে। ৩ লিটারের পুষ্টি ব্র্যান্ডের বোতলজাত তেল কিনেছেন, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এমন এক ব্যক্তি জানালেন, গায়ের দর থেকে সামান্য বেশি দিয়ে তেল কিনেছেন। এর বেশি কিছু বলতে চাননি ওই ক্রেতা।

সিটি বাজারের হারুন স্টোরের মালিক হারুন মিয়া বলেন, ‘তেল বিক্রিতে শর্ত থাকায় ক্রেতার কাছে আমরাই শর্ত দিয়ে বিক্রি করেছি। কিন্তু আজ থেকে সেই শর্ত নেই। গায়ের দামেই তেল বিক্রি করা হচ্ছে।’

রংপুরের জেলা প্রশাসক প্রশাসক আসিব আহসান প্রথম আলোকে বলেন, তেলের বাজার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। তেলের বাজার স্থিতিশীল রাখতে সব সময় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। বাজারে যেন কৃত্রিম সংকট তৈরি না হয় সেটাও লক্ষ করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন