বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ শুক্রবার ‘ব্রেস্ট ক্যানসার সারভাইভারস অব সিলেট’ আয়োজিত আলোচনা সভায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা এসব কথা বলেন। নগরীর দরগাগেট এলাকার একটি রেস্তোরাঁর সম্মেলনকক্ষে নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ওই সভা হয়।

সভা সঞ্চালনা করেন স্তন ক্যানসার থেকে আরোগ্য লাভ করা প্রকৌশলী অনিকা রায়। এতে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডি এ হাসান, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পারভিন আক্তার, নাহিদ ইলোরা প্রমুখ বক্তব্য দেন। আয়োজকদের পক্ষে নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক দেবাশীষ পাটোয়ারী বক্তব্য দেন।

সিলেটে প্রথম এ রকম সভার আয়োজন করায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সিলেটের স্থানীয় সাংসদ হিসেবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন, লেখক মুহম্মদ  জাফর ইকবাল, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এম এ হাই ও সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বক্তব্য দেন। সিলেটে এ রকম একটি সচেতনতামূলক সভার প্রথম আয়োজন ও স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে একটি সংগঠনের যাত্রা শুরু হওয়ার ঘটনার প্রশংসা করেন তাঁরা।

সভায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পর্যবেক্ষণ ও বিভিন্ন গবেষণা তথ্যের বরাত দিয়ে বলা হয়, বাংলাদেশে প্রতিবছর ১৩ হাজারের বেশি নারী স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হন। মারা যান ৬ হাজার ৭৮৩ জন। ক্যানসারের রোগীদের মধ্যে ১৯ শতাংশ ভোগেন স্তন ক্যানসারে। এটা মোটেও সুখকর নয়। উপসর্গ দেখা দিলে প্রাথমিক পর্যায়ে যদি রোগীরা চিকিৎসকের পরামর্শ নেন এবং দ্রুত শনাক্ত হলে ৯৫ শতাংশ স্তন ক্যানসার নিরাময় সম্ভব।

রক্ষণশীলতার কারণে নারীরা রোগটি প্রথম দিকে প্রকাশ করতে না চাওয়াটি বড় একটি ভুল অভিহিত করে চিকিৎসকেরা বলেন, নারীরা শুরুতে চান না এটি প্রকাশ হোক। এমনকি শরীরে প্রাথমিক কোনো লক্ষণ দেখা গেলেও তাঁরা গোপন রাখেন। বেশির ভাগ রোগী চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন একেবারে শেষ পর্যায়ে, এতে চিকিৎসা ব্যয়বহুল হয়ে যায়। তখন রোগীরা আর নিয়মিত চিকিৎসকের কাছে যান না। একপর্যায়ে আর কিছুই করার থাকে না। এই প্রবণতার বিরুদ্ধে সচেতনতার বার্তা নিয়ে সমাজের সব শ্রেণির মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান চিকিৎসকেরা।

স্তন ক্যানসার আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বাড়ায় কিছুটা সচেতনতা বেড়েছে উল্লেখ করে সভায় বলা হয়, আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বাড়ায় এখন  চিকিৎসকের কাছেও আগের তুলনায় বেশি রোগী আসছেন। বেশ কিছু কারণে রোগটি হতে পারে। আমাদের জীবনাচার ও খাদ্যাভ্যাসে অনেক পরিবর্তন এসেছে। সেটি একটি কারণ। এ ছাড়া কারও পরিবারে ক্যানসারের ইতিহাস থাকলে, সে কারণেও হতে পারে। তবে প্রাথমিক অবস্থায় শনাক্ত হলে স্তন ক্যানসার শতভাগ নিরাময়যোগ্য।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন