বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আওয়ামী লীগের নেতা রফিকুল ইসলাম তালুকদার বুধবার বিকেলে রাঙ্গুনিয়ায় গ্রামের বাড়ি যাওয়ার কথা বলে বের হন। এরপর সম্ভাব্য সব স্থানে তাঁকে খোঁজাখুঁজি করা হয়। কিন্তু পাওয়া যায়নি। পরে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনি ফিরে আসেন। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে রফিকুল ইসলামের মুঠোফোনে ফোন করলেও সংযোগ বন্ধ পাওয়া যায়।

পরে তাঁর স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, বুধবার তিনি (রফিকুল ইসলাম) বাসা থেকে বের হলেও বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনি চট্টগ্রাম নগরীর বাসায় ফিরে আসেন। মুঠোফোন নষ্ট হওয়ার কারণে তাঁকে দীর্ঘ সময় পাওয়া যায়নি বলে তিনি দাবি করেন। তিনি দীর্ঘ সময় কোথায় ছিলেন, কী কারণে গেছেন, বলতে রাজি হননি তিনি।

বৃহস্পতিবার তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল। শুক্রবার প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। উপজেলার ১৩ ইউনিয়নের মধ্যে ৮টিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা ভোটে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। বাকি ৫ ইউনিয়নের মধ্যে ৪টিতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। লালানগর ইউনিয়নে রফিকুল ইসলাম তালুকদার স্বতন্ত্র থেকে নির্বাচন করছেন।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ ও রাঙ্গুনিয়া নির্বাচনী সার্চ কমিটির সদস্য আকতার হোসেন খান বলেন, রফিকুল ইসলাম তালুকদারসহ দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের শোকজ করা হয়েছিল। তাঁরা কেউ এখনো শোকজের জবাব দেননি। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রত্যাহার না করলে তাঁদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে শোকজ নোটিশে জানানো হয়েছিল।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন