default-image

পিরোজপুরের ইন্দুরকানি উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হাবিবুর রহমান অভিযোগ করেছেন, তাঁর মনোনয়নপত্রের সমর্থক এনায়েত সিকদারকে (৫০) শুক্রবার বিকেলে উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী কবির হোসেন বয়াতীর লোকজন তুলে নিয়ে গেছেন। বিকেলে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা এ এস এম রোকনুজ্জামান খান মনোনয়ন যাচাই–বাছাই শেষে সমর্থক এনায়েত সিকদারের স্বাক্ষর গরমিল থাকায় মানোনয়নপত্র বাতিল করেন।

সন্ধ্যা সোয়া সাতটার দি‌কে উপ‌জেলার বা‌লিপাড়া ইউ‌নিয়‌নের প‌থেরহাট এলাকা থেকে এনা‌য়েত সিকদার‌কে উদ্ধার ক‌রে পু‌লিশ।

হাবিবুর রহমান বলেন, শুক্রবার বেলা তিনটার দিকে তিনি মনোনয়নপত্র যাচাই–বাছাইয়ের জন্য উপজেলা পরিষদে যান। বেলা সোয়া তিনটার দিকে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী কবির হোসেন বয়াতীর উপস্থিতিতে তাঁর লোকজন এনায়েত সিকদারকে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যান। এরপর উপজেলা পরিষদের প্রবেশের সময় তাঁর প্রস্তাবক মহিউদ্দিনকে মারধর করে জামা ছিঁড়ে ফেলা হয়। এর আগে ৯ মার্চ দুপুরে হাবিবুর রহমানের মনোনয়নপত্র সংগ্রহের জন্য ট্রেজারি চালান ফরম নিয়ে তাঁর শ্যালক আবুল কালাম গাজী উপজেলা পরিষদের গেলে চালান ফরম ছিনিতাইয়ের ঘটনা ঘটে।

বিজ্ঞাপন

রিটার্নিং কর্মকর্তা এ এস এম রোকনুজ্জামান খান বলেন, মনোনয়ন যাচাই–বাছাই করার সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী হাবিবুর রহমানের প্রস্তাবক ও সমর্থকের স্বাক্ষর সঠিক নয় বলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী অভিযোগ করেন। এ সময় প্রস্তাবকের স্বাক্ষর সঠিক প্রমাণিত হয়। তবে সমর্থক এনায়েত সিকদার উপস্থিত না থাকায় তাঁর পরিচয়পত্রের স্বাক্ষর মনোনয়নপত্রের স্বাক্ষরের সঙ্গে গরমিল দেখা যায়। এরপর হাবিবুরের মানোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

হাবিবুর রহমান বলেন, ‘এটা পরিকল্পিত। আমি মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল করব।’

আওয়ামী লীগের কবির হোসেন বয়াতী বলেন, এনায়েত সিকদারকে তুলে নেওয়া হয়নি। এ অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।

ইন্দুরকানি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হুমায়ুন কবির বলেন, মনোনয়নপত্র যাচাই–বাছাই করার সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী হাবিবুর রহমান তাঁর সমর্থক এনায়েতকে অপহরণের মৌখিক অভিযোগ করেন। পরে সন্ধ্যায় তাঁকে উদ্ধার করা হয়।

আগামী ১১ এপ্রিল প্রথম ধাপে উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের কবির হোসেন বয়াতী, জাতীয় পার্টির (জেপি) মোয়াজ্জেম হোসেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের রুহুল আমিন, স্বতন্ত্র হিসেবে উপজেলা জামায়াতে ইসলামীর আমির হাবিবুর রহমান, আবু হানিফ ও মো. খলিল মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নেতা মানবতাবিরোধী অপরাধে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর বাড়ি বালিপাড়া ইউনিয়নের সাউদখালী গ্রামে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন