default-image

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় প্রেমিকার বাড়ি থেকে প্রেমিককে উদ্ধার করতে গিয়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে। তাঁর নাম মো. পারভেজ হোসেন (২৪)। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও তিনজন। আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত পারভেজ উপজেলার আলাইয়াপুর ইউনিয়নের আক্তারামপুর গ্রামের রহিম উদ্দিনের ছেলে। আহত ব্যক্তিরা হলেন উপজেলার রুদ্রপুর গ্রামের নজির আহমদের ছেলে রিয়াদ হোসেন (২৭), মো. পারভেজ (২৫) ও হেঞ্জু মিয়ার ছেলে আজাদ হোসেন (৩২)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে গতকাল সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে পশ্চিম খালিশপুর গ্রামের একটি মেয়ের (২৭) সঙ্গে দেখা করতে তাঁর বাড়িতে যান প্রেমিক আলাইয়াপুর ইউনিয়নের রুদ্রপুর গ্রামের মো. সুজন (১৮)। একপর্যায়ে মেয়ের পরিবার সুজনকে আটক করে। খবর পেয়ে গতকাল রাতে সুজনের বড় ভাই রিয়াদ হোসেন ওই বাড়িতে যান। তখন মেয়ের পরিবারের লোকজন তাঁদের কাছে ১০ লাখ টাকা দাবি করেন। অন্যথায় তাঁদের মেয়েকে বিয়ে করতে হবে বলে জানিয়ে দেন। তবে ছেলের বয়সের তুলনায় মেয়ের বয়স বেশি হওয়ায় বিয়েতে ছেলের পরিবার রাজি নয় জানিয়ে রাতে সুজনের ভাই বাড়ি ফিরে যান।

প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে গতকাল সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে পশ্চিম খালিশপুর গ্রামের একটি মেয়ের (২৭) সঙ্গে দেখা করতে তাঁর বাড়িতে যান মো. সুজন (১৮)। একপর্যায়ে মেয়ের পরিবার সুজনকে আটক করে।
বিজ্ঞাপন

বিষয়টি জানতে পেরে আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সুজনের বন্ধু পারভেজ হোসেনসহ কয়েকজন ওই বাড়িতে যান। তাঁরা সুজনকে ছাড়িয়ে আনা নিয়ে বাড়ির লোকজনের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডায় লিপ্ত হন। একপর্যায়ে বাড়ির লোকজনের হামলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে পারভেজসহ চারজন গুরুতর আহত হন। পরে আশপাশের লোকজনের সহায়তায় তাঁদের উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক পারভেজ হোসেনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত বাকি তিনজনকে একই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সুজনকে উদ্ধার করে ও মেয়ের পরিবারের দুজনকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। নিহত পারভেজের পরিবারের অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।
মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি), বেগমগঞ্জ থানা

ঘটনা নিশ্চিত করে বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার প্রথম আলোকে বলেন, প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে সুজন নামের এক তরুণ গতকাল সন্ধ্যায় তাঁর প্রেমিকার বাড়িতে গেলে বাড়ির লোকজন তাঁকে আটক করে রাখে। এই ঘটনায় আজ সকালে পারভেজ নামের একজন ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মারা গেছেন। আরও তিনজন আহত হয়েছেন। খবর পেয়ে তাঁরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সুজনকে উদ্ধার করে ও মেয়ের পরিবারের দুজনকে আটক করে থানায় নিয়ে এসেছেন। নিহত পারভেজের পরিবারের অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন