বিজ্ঞাপন

গত শুক্রবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে উপজেলার কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের শৈলডুবি গ্রামে প্রকাশ্যে ওই গ্রামের ইউনুস সিকদার, তাঁর ছেলে জাহিদ সিকদার ও পরিবারের অন্য সদস্যরা কোহিনূর বেগমকে পিটিয়ে হত্যা করেন। জমিজমাসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটে। পরে কোহিনূরের ভাই পূর্ব শৈলডুবি গ্রামের মো. হাসান ফকির (৪৩) বাদী হয়ে গত শনিবার ইউনুস, তাঁর ছেলে জাহিদ সিকদারসহ একই পরিবারের চারজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন।

কোহিনূর বেগম জীবন বাঁচাতে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন প্রতিবেশীর বাথরুমে। সেখান থেকেও তাঁকে টেনেহিঁচড়ে বের করে এনে পেটানো হয়। বাঁচার জন্য একপর্যায়ে ঝাঁপ দিয়েছিলেন পুকুরে। পুকুর থেকে তুলে তাঁকে পেটানো হয়। একপর্যায়ে মারা যান কোহিনূর। দিনের বেলা এবং প্রকাশ্যে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটলেও গ্রামের কেউ কোহিনূর বেগমকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেনি।

এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, কোহিনূর শৈলডুবি গ্রামের শহিদ সিকদারের স্ত্রী ছিলেন। তাঁর শাকিবুল সিকদার নামে ১৩ বছরের এক ছেলে আছে। ১০ বছর আগে স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে গেলে কোহিনূর লেবাননে চলে যান। সেখানে চাকরি করার পর দুই বছর আগে দেশে ফিরেন। দেশে ফিরে শৈলডুবি গ্রামের ইউনুস সিকদারের কাছ থেকে ১৮ শতাংশ জমি কেনেন। কেনা জমিতে কোহিনূর একটি টিনের দোচালা ঘর তুলে ছেলে শাকিবুলকে নিয়ে বসবাস করতেন। কিন্তু জমি বিক্রির টাকা নেওয়ার পরও জমিটি কোহিনূরের নামে লিখে দিতে গড়িমসি করেন ইউনুস। এ নিয়ে তাঁদের মধ্যে প্রায়ই বচসা হতো। এ বচসা থেকে কোহিনূরকে পিটিয়ে হত্যার এ ঘটনা ঘটে।

সদরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত গোলদার বলেন, ঘটনার পর হত্যার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা তাৎক্ষণিকভাবে পালিয়ে যান। ফলে ঘটনাস্থল থেকে কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। অবশেষে সোমবার বেলা দুইটার দিকে মুগদা পুলিশের সহায়তায় ঢাকার মুগদা থানা এলাকায় অবস্থিত ইউনুসের বেয়াইয়ের বাড়ি থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গ্রেপ্তার করা হয় ইউনুসকে। তিনি বলেন, এজাহারভুক্ত বাকি তিন আসামিকে দ্রুত গ্রেপ্তার করা হবে।

ওসি সুব্রত গোলদার বলেন, সোমবার রাতে ইউনুসকে সদরপুর থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। আজ মঙ্গলবার তাঁকে জেলার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হবে। যদি তিনি ১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন, তাহলে তাঁর রিমান্ডের আবেদন জানানো হবে না।

উল্লেখ্য, গত রোববার প্রথম আলোর ৬–এর পাতায় ‘ফরিদপুরের সদরপুর, নারীকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার হয়নি কেউ’ শিরোনামে এ–সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশিত হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন