বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উপজেলা প্রশাসন ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সদর ইউনিয়নের দেওলা গ্রামের সামনের চন্দ্র সোনার থাল হাওরে ওই ফসল রক্ষা বাঁধটির অবস্থান। গত অর্থবছরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) অধীনে প্রায় ১৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বাঁধটি পুননি৴র্মাণ ও মেরামতের কাজ হয়। মাছ শিকার করতে গত সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে এ বাঁধের তিন স্থানে ১০ ফুট করে রাতের আঁধারে কেটে দেয় দুর্বৃত্তরা। পরে পানির তোড়ে কাটা স্থানগুলো ৩০ থেকে ৪০ ফুট হয়ে যায়। তিন সপ্তাহ ধরে স্থানীয় জেলেরা বাঁধের ওই কাটা স্থানে ভিমজাল পেতে সেখান থেকে মাছ শিকার করে আসছেন।

এ অবস্থায় আজ শনিবার দুপুরে ওই বাঁধে অভিযানে যান হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ও মেরামতকাজের ধরমপাশা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন ও পর্যবেক্ষণ কমিটির সদস্যসচিব এবং সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. ইমরান হোসেন। অভিযান টের পেয়ে মাছ শিকারে জড়িত ব্যক্তিরা সটকে পড়েন। পরে বাঁধের কাটা স্থানগুলো থেকে পেতে রাখা তিনটি ভিমজাল জব্দ করা হয়। সেগুলো ধরমপাশা থানাসংলগ্ন কংস নদের তীরে এনে রাখা হয়। শনিবার সন্ধ্যা সোয়া সাতটায় ইউএনও মো. মুনতাসির হাসানের উপস্থিতিতে জালগুলো পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়। এ সময় সেখানে ধরমপাশা থানার ওসি মো. খালেদ চৌধুরী, পাউবোর উপসহকারী প্রকৌশলী ইমরান হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ইমরান হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ফসল রক্ষা বাঁধগুলো কেটে ফেলায় চরম ক্ষতি হয়েছে। ফসল রক্ষা বাঁধের কাটা স্থানে জাল পেতে মাছ শিকার করায় স্থানগুলো দিন দিন বড় হচ্ছে। এ অবস্থায় সরকারি সম্পদ রক্ষা ও কৃষকদের স্বার্থের কথা বিবেচনা করে এ অভিযান চালানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন