default-image

চার মাসের ফুটফুটে শিশু ফাইয়াজুল হক। এ বয়সেই সে অবাক হয়ে চারপাশে তাকিয়ে দেখতে শিখেছে। মাঝেমধ্যে নীল হয়ে যাচ্ছে যন্ত্রণায়। তখন ওর বুকে চলছে অতিরিক্ত রক্তপ্রবাহ। গত ১৮ জুলাই জন্মের মাত্র এক সপ্তাহ পরই ধরা পড়ে ফাইয়াজুলের ফুসফুসে দুটি ছিদ্র আছে। সেখান থেকে অতিরিক্ত রক্তপ্রবাহ ঘটে।

ফাইয়াজের বাড়ি ফরিদপুর সদর উপজেলার গেরদা ইউনিয়নের জোয়াইড় গ্রামে। তার বাবা ফজলুল হক একটি বেসরকারি কলেজের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী। ফরিদপুরের শিশু বিশেষজ্ঞ আবদুলাহিস সায়াদের কাছে পরীক্ষার পর শিশুটিকে তার বাবা ঢাকা নিয়ে আসেন। রাজধানীর ল্যাবএইড কার্ডিয়াক হাসপাতালের চিকিৎসক অধ্যাপক নুরুন্নাহার ফাতেমার তত্ত্বাবধানে শুরু হয় ফাইয়াজের চিকিৎসা। দুজন চিকিৎসকই এক মাসের ওষুধ ও ব্যবস্থাপত্র দিয়ে যত দ্রুত সম্ভব ফাইয়াজের অপারেশনের পরামর্শ দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

চিকিৎসার জন্য পাঁচ লাখ টাকার বেশি প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। দরিদ্র পিতার পক্ষে এই বিপুল ব্যয় বহন করা সম্ভব নয়। যত সময় যাচ্ছে, তত দ্রুত অনিশ্চিত হয়ে উঠছে শিশুটির বেঁচে থাকার আশা। সন্তানকে বাঁচাতে ফাইয়াজের মা–বাবা এখন চেয়ে আছেন সবার মুখের দিকে। এক মাস ধরে নানা জায়গায় আবেদন করেও সন্তানের অপারেশনের অর্থ সংগ্রহ করতে পারেননি। প্রতিমুহূর্তে আতঙ্কে আছেন। সবার সামান্য সহযোগিতাই হয়তো দীর্ঘ জীবন দিতে পারে ফুটফুটে ফাইয়াজকে।

ফাইয়াজকে বাঁচাতে সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা:

অগ্রণী ব্যাংক, ফরিদপুর শাখা। হিসাব নম্বর: ০২ ০০ ০০ ০৯ ২৯ ৫৪১। অথবা ‘বিকাশ’ ও ‘নগদ’–এ অর্থসহায়তার জন্য মুঠোফোন নম্বর: ০১৯১১০২২৮৭৮ (ব্যক্তিগত)।

মন্তব্য পড়ুন 0