default-image

ময়মনসিংহের ফুলপুর পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপির প্রার্থীর কার্যালয় ও এক নেতার বাড়িতে ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই দিনে নির্বাচনী প্রচার চালানোর সময় বিএনপির কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাদের ওপর আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকেরা হামলা করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এমরান সালেহ বলেন, বুধবার সন্ধ্যায় তিনিসহ বিএনপির নেতারা নির্বাচনী পথসভায় যাচ্ছিলেন। যাওয়ার পথে পৌর শহরের গোদারিয়া মাদ্রাসা এলাকায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কর্মীরা তাঁদের ওপর হামলা করেন। হামলাকারীরা বিএনপি প্রার্থীর প্রচার মাইক ভাঙচুর করেন ও ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলেন।

ওই বহরে ছিলেন ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম আহ্বায়ক মোতাহার হোসেন তালুকদার, ফুলপুর আসনের সাবেক সাংসদ আবুল বাশার আকন্দ। এ ঘটনার পর আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকেরা বিএনপির প্রার্থী আমিনুল ইসলামের একাধিক নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর করেন এবং সাবেক সাংসদ আবুল বাশার আকন্দের বাড়িতে হামলা করে ভাঙচুর চালান।

বিজ্ঞাপন

এসব ঘটনার মাধ্যমে ফুলপুরে পৌরসভা নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হওয়ার বিষয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে বলে জানান সৈয়দ এমরান সালেহ। তিনি বলেন, নির্বাচনের দিন কেন্দ্রে বিএনপির এজেন্ট থাকতে দেবে না বলেও হুমকি দেওয়া হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে হামলার বিষয়ে অভিযোগ দিয়েও কোনো প্রতিকার মেলেনি।

সংবাদ সম্মেলনে মোতাহার হোসেন তালুকদার, আবুল বাশার আকন্দ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থী আমিনুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। হামলা ও ভাঙচুরের বিষয়ে জানতে ফুলপুর পৌরসভা নির্বাচনের আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী শশধর সেনকে একাধিকবার কল করা হলে তিনি ধরেননি।

তবে অভিযোগের বিষয়ে ফুলপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এম এ হাকিম বলেন, বুধবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কর্মীরা মুখোমুখি হলে দুই পক্ষের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। এতে সাময়িক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। হামলা বা ভাঙচুরের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন