বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানায়, গতকাল বিকেলে এক ব্যক্তি ফেনী সদর মডেল থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন, তিনি বৃহস্পতিবার বেলা একটার দিকে ফেনী পৌরসভার একাডেমি এলাকার রোকেয়া আক্তার ও তাঁর স্বামী মো. মিলন মিয়া জমি কিনতে বায়না করার জন্য ফেনী সদর উপজেলা রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে যান। সেখানে জমির বায়নার নগদ নয় লাখ টাকা ও প্রয়োজনীয় দলিলপত্র একটি ব্যাগে নিয়ে কাজ শেষ করে বাসায় যাওয়ার জন্য একটি অটোরিকশা ভাড়া নেন।

শহরের একাডেমি এলাকায় গিয়ে তাঁরা অটোরিকশা থেকে নেমে বাসায় চলে যান। বাসায় ঢোকার পর জমির দলিলসহ টাকার ব্যাগের কথা মনে পড়ে ওই দম্পতির। অটোরিকশাচালক অপরিচিত ও অজ্ঞাত হওয়ায় তাঁরা দুশ্চিন্তায় পড়ে যান। পরে ফেনী সদর মডেল থানায় গিয়ে তাঁরা বিষয়টি বিস্তারিত পুলিশকে জানান এবং এ বিষয়ে পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগ পাওয়ার পরপরই মাঠে নামে পুলিশ।

ফেনীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থোয়াই অং প্রু মারমার তত্ত্বাবধানে ও ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিনের সহযোগিতায় ওই অটোরিকশাচালককে খুঁজে বের করে পুলিশ। পরে গতকাল রাত নয়টার দিকে তাঁর হেফাজত থেকে যাত্রীর ফেলে যাওয়া ব্যাগসহ ৯ লাখ টাকা ও জমির দলিল উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারের পর ফেনী মডেল থানায় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুনের উপস্থিতিতে টাকার মালিকের হাতে টাকা ও জমির দলিল তুলে দেওয়া হয়। জমির দলিল, টাকাসহ ব্যাগ উদ্ধারের পর পুলিশ সুপার সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান। তবে পুলিশ ওই জমির দলিল ও টাকার ব্যাগ উদ্ধারের ঘটনায় অটোরিকশাচালকের নাম–ঠিকানা বা পরিচয় জানাননি। জমির দলিল ও টাকা ফেরত পেয়ে ওই দম্পতি পুলিশকে ধন্যবাদ জানান।

এ বিষয়ে ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন বলেন, এক দম্পতির জমির দলিল, ৯ লাখ টাকাসহ একটি ব্যাগ অটোরিকশায় ভুলে ফেলে গিয়েছিলেন। পরে এ বিষয়ে অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ অটোরিকশাচালককে খুঁজে বের করে টাকা উদ্ধার করে প্রকৃত মালিকের হাতে তুলে দেয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন