default-image

নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জার গাড়িবহরে আজ বৃহস্পতিবার হামলা ও ভাঙচুর করা হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। এ সময় বসুরহাট ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. সেলিম (৫০) আহত হয়েছেন। নবনির্বাচিত মেয়র হিসেবে শপথ নেওয়ার জন্য চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে সকাল সাড়ে ৬টার দিকে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলা সদরের জিরো পয়েন্টে দুর্বৃত্তরা গাড়িবহরে হামলা করে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

আবদুল কাদের মির্জা বলেন, শপথ নেওয়ার জন্য আজ সকালে তিনি চট্টগ্রামে যাচ্ছিলেন। পথে ফেনীর দাগনভূঞার জিরো পয়েন্টে একদল সংঘবদ্ধ দুর্বৃত্ত তাঁর গাড়িতে হামলা করে। সামনে একটি ট্রাক থাকায় তাঁর (মির্জা) গাড়িটি পার হয়ে গেলেও পেছনের গাড়িগুলোতে দুর্বৃত্তরা ইটপাটকেল ও লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা করে। তারা গাড়িবহর লক্ষ্য করে ডিম ছোড়ে। এতে গাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়। হামলায় বসুরহাটের ব্যবসায়ী ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি সেলিম আহত হন। দুর্বৃত্তরা তাঁকে হত্যা করার উদ্দেশ্যে এ হামলা করেছে বলে তিনি মনে করেন।

বিজ্ঞাপন

বসুরহাট পৌরসভার নবনির্বাচিত এই মেয়র বলেন, তিনি আইনি পদক্ষেপ নেবেন। তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে আন্দোলন করবেন। তিনি গাড়িবহরে হামলার জন্য নোয়াখালীর সাংসদ একরামুল করিম চৌধুরী, ফেনীর সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারী ও দাগনভূঞা উপজেলা চেয়ারম্যান দিদারুল কবিরকে দায়ী করেছেন।

জানতে চাইলে দাগনভূঞা উপজেলা চেয়ারম্যান দিদারুল কবির তাঁর বিরুদ্ধে করা অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, তিনি ঢাকায় আছেন। তবে তিনি শুনেছেন ওই এলাকার সিএনজিচালিত অটোরিকশার মালিকদের সঙ্গে কাদের মির্জার কিছুদিন ধরে ঝামেলা চলছিল। তাঁর বিরুদ্ধে করা অভিযোগ ভিত্তিহীন।

দাগনভূঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইমতিয়াজ আহমদ বলেন, তিনি মৌখিকভাবে অভিযোগ পেয়েছেন। অভিযোগের সত্যতা পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন