বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শুক্রবার রাতে ফেনী সদর উপজেলার ছনুয়া ইউপির দুই প্রার্থীর বাড়িতে পৃথকভাবে এ হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. করিমুল্লাহ ছনুয়া ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান ও ফেনী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে রয়েছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় ব্যক্তিরা জানান, শুক্রবার রাত সাতটার দিকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম পাটোয়ারীর বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। এর প্রায় ঘণ্টাখানেক পর আরেক চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ইব্রাহিমের বাড়িতেও হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।

দুই প্রার্থী সাইফুল ইসলাম ও ইব্রাহিম অভিযোগ করেন, দুটি হামলার ঘটনাতেই বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি করিমুল্লাহ দলবল নিয়ে উপস্থিত ছিলেন। হামলাকারীরা ব্যাপক ভাঙচুর চালালে এ সময় ঘরে থাকা নারী ও শিশুরা দিগ্‌বিদিক ছোটাছুটি করতে থাকে। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি।

চেয়ারম্যান প্রার্থী সাইফুল ইসলাম আরও বলেন, একজন জনপ্রতিনিধি কীভাবে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বাড়িতে হামলা করতে পারেন? তিনি এর বিচার চান। এর আগের দিন বৃহস্পতিবার নৌকার লোকজন তাঁকে মনোনয়নপত্র জমা দিতে নানাভাবে বাধা দিয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

অভিযোগের বিষয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী করিমুল্লাহ বলেন, তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বাড়িতে হামলা করেননি। বরং হামলার ঘটনা শুনে বিক্ষুব্ধ জনতাকে শান্ত করতে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন তিনি। ফেসবুক লাইভে এসে যুবলীগ নেতা ইব্রাহিম তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন কুৎসা প্রচার করায় স্থানীয় ভোটাররা ক্ষুব্ধ হয়ে হামলা করেছেন বলে দাবি করেন করিমুল্লাহ। তবে সাইফুলের বাড়িতে হামলাকে সাইফুলের পরিকল্পিত ও সাজানো নাটক বলে দাবি করেন তিনি। এটি তাঁকে হেয়প্রতিপন্ন ও অপপ্রচারের উদ্দেশ্যেই করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

ফেনী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাজিম উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। শনিবার দুপুরে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী পৃথকভাবে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন