রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় যানবাহনের দীর্ঘ সারি। আজ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া ক্যানালঘাট এলাকায়
রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় যানবাহনের দীর্ঘ সারি। আজ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া ক্যানালঘাট এলাকায়প্রথম আলো

ফেরি ও ঘাটস্বল্পতার কারণে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়ায় যানবাহনের দীর্ঘ সারির সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই পণ্যবাহী গাড়ি। আজ মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত গাড়ির লাইন ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে তিন কিলোমিটার দীর্ঘ হয়। দীর্ঘ সময় লাইনে আটকে থাকায় দুর্ভোগের শিকার হন চালক ও সাধারণ যাত্রী।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) ও ঘাটসংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, যানবাহন ও যাত্রী পারাপার নির্বিঘ্ন করতে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ছোট–বড় মিলে ১৯টি ফেরি চালু রয়েছে। জরুরি প্রয়োজনে এই রুট থেকে দুই দিন আগে রো রো (বড়) ফেরি ‘শাহ মখদুম’ ও ‘বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর’ শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌপথে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তিন দিন ধরে যান্ত্রিক ত্রুটিতে আরেক রো রো ফেরি শাহ পরান পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে রয়েছে। তিনটি বড় ফেরি না থাকায় যানবাহন পারাপার ব্যাহত হচ্ছে।

এদিকে দৌলতদিয়ায় ছয়টির মধ্যে গত বছর ১ ও ২ নম্বর ঘাটের ভাঙনে বিলীন হওয়ায় বাকি চারটি ঘাট চালু ছিল। ঘাটের কাছে পদ্মার পানি দ্রুত কমায় প্রতিটি ঘাটের র‍্যাম্প উঁচু হয়ে যায়। যে কারণে ফেরিতে গাড়ি ওঠানামায় সমস্যা সৃষ্টি হয়। অতিরিক্ত উঁচু হওয়ায় ৬ নম্বর ঘাটটি প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে বন্ধ রয়েছে। ফলে শুধু ৩, ৪ ও ৫ নম্বর ঘাট সচল রয়েছে। একদিকে ফেরিস্বল্পতা, অন্যদিকে মাত্র তিনটি ঘাট সচল থাকায় গাড়ি দ্রুত নদী পাড়ি দিতে না পেরে আটকা পড়ছে। যে কারণে দৌলতদিয়ায় গাড়ির লম্বা সারি তৈরি হচ্ছে। অন্যদিকে দৌলতদিয়া ঘাটে গাড়ির চাপ কমাতে গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় আটকে রাখা হচ্ছে গাড়ি। সেখানেও প্রায় দু-তিন কিলোমিটার করে লম্বা লাইন তৈরি হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
default-image

আজ সকালে দেখা যায়, ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত প্রায় তিন কিলোমিটার লম্বা গাড়ির লাইন তৈরি হয়েছে। লাইনে আটকা যানগুলোর বেশির ভাগই পণ্যবাহী গাড়ি। বেশির ভাগ গাড়ি এক দিন আগে এসে গোয়ালন্দ মোড়ে আটকে থাকছে। সেখান থেকে দৌলতদিয়ায় এসে আরও কয়েক ঘণ্টা করে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে।

ঝিনাইদহ থেকে পণ্যবোঝাই করে আসা ঢাকাগামী কাভার্ড ভ্যানের চালক আল হেলাল বলেন, ‘সোমবার সন্ধ্যায় গোয়ালন্দ মোড় পৌঁছালে পুলিশ আটকে দেয়। সারা রাত মোড়ে থাকার পর ভোরের দিকে আমাদের দৌলতদিয়া ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে দেয়। এখানে এসেও প্রায় চার ঘণ্টা ধরে লাইনে পড়ে আছি। আমার আগেও আরও অনেক গাড়ি আছে। সবাইকে এভাবে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে আটকে থাকতে হচ্ছে।’

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক আবু আবদুল্লাহ বলেন, বর্তমানে বড় ফেরির সংখ্যা কমে ফেরিস্বল্পতা দেখা দিয়েছে। সেই সঙ্গে রয়েছে ঘাটসংকটও। ছয়টি ঘাটের মধ্যে বর্তমানে মাত্র তিনটি ঘাট সচল রয়েছে। শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌপথ এখনো স্বাভাবিক না হওয়ায় ওই রুটের অধিকাংশ পণ্যবাহী গাড়ি এই রুট দিয়ে চলাচল করায় বাড়তি চাপ পড়ছে। এসব কারণে দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া উভয় ঘাটেই গাড়ির লম্বা সারি তৈরি হচ্ছে।

মন্তব্য পড়ুন 0